পূজামণ্ডপে হামলার প্রতিবাদে শাহবাগে মোমবাতি প্রজ্বলন

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১১ পিএম, ২২ অক্টোবর ২০২১

দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপে প্রতিমা ভাঙচুর ও সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বাড়িতে হামলার প্রতিবাদে মোমবাতি প্রজ্বলন কর্মসূচি পালন করেছে ‘যুব বাঙালি’ নামে একটি সংগঠন।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টা থেকে ২০ মিনিট পর্যন্ত রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের ফটকে এ কর্মসূচি পালন করে সংগঠনটি। এসময় প্ল্যাকার্ড হাতে মোমবাতি জ্বালিয়ে কর্মসূচিতে অংশ নেন সংগঠনটির সদস্যরা। তবে, কর্মসূচিতে কেউ কোনো বক্তব্য না রাখলেও একটি প্রচারপত্র বিতরণ করা হয়।

‘কাটুক আঁধার, জ্বলুক আলো’ শিরোনামের ওই প্রচারপত্রে বলা হয়, সারাদেশে হামলা, ভাঙচুর ও সর্বশেষ রংপুরে অগ্নিসংযোগের ঘটনা নিছক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার চেষ্টা নয়। বরং বাঙালির তৃতীয় জাগরণের পর্যায়কালকে যৌক্তিক পরিণতির দিকে যেতে না দেওয়ারই চেষ্টা। এ সব ঘটনা দীর্ঘ আন্দোলন এবং সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বাঙালির স্বাধীনতা ও জাতিসত্তার ওপর আঘাত।

আরও বলা হয়, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে বাঙালির যে সহাবস্থান তা বিপরীতভাবে চিত্রায়িত করে বাঙালিত্বের বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা চলছে। স্বাধীনতা সংগ্রাম ও সশস্ত্র যুদ্ধের প্রস্তুতি পর্যায়েও এ ধরনের বহুচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছিল। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে বাঙালির সব আন্দোলনে যুব সমাজের ভূমিকাই অগ্রণী ছিলো। কিন্তু সেই সংগঠিত যুব শক্তিকে কখনই রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। বরং নানাভাবে তাচ্ছিল্য করা হয়েছে স্বাধীন বাংলাদেশে।

প্রচারপত্রে দাবি করা হয়, স্বাধীনতার পর থেকেই রাষ্ট্রীয়-প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডসহ সব কিছু ঔপনিবেশিক আমলের ব্যবস্থাপনা ও লোকবল দিয়ে পরিচালিত হয়ে এসেছে। তারই পরিণাম সামাজিক-রাজনৈতিকভাবে যুব সমাজ আজকের নিস্তেজ অবস্থায় পতিত হয়েছে। বাঙালিত্ব ধ্বংস করার ধারাবাহিক এ হামলার পরেও দেশের যুব সমাজ একেবারেই নির্জীব অবস্থানে আছে, যা কী না বাঙালির জাতীয়তা বোধ, সম্প্রীতিবোধের বিপরীত।

এসময় কর্মসূচিতে সংগঠনটির যুগ্ম আহ্বায়ক রায়হান তানভীর, সদস্য সচিব তানসেন, দপ্তর সম্পাদক হাসান আসিফ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমএএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]