‘ইভ্যালির টাকা বানরের রুটি ভাগের মতো হোক, তা চাই না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:২২ পিএম, ২২ অক্টোবর ২০২১

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মোহাম্মদ রাসেল ও চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের মুক্তিসহ সাত দফা দাবি জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির মার্চেন্ট ও গ্রাহকরা।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে ইভ্যালির মার্চেন্ট ও গ্রাহকরা এ দাবি জানান। এ মানববন্ধনে ইভ্যালির শতাধিক মার্চেন্ট ও গ্রাহক অংশ নেন।

তারা বলছেন, গ্রাহক ও মার্চেন্ট উভয়ই ইভ্যালি এমডি রাসেলকে সময় দিতে চায়। তাকে মুক্তি না দিলে কেউই টাকা ও পণ্য ফেরত পাবেন না।

মানববন্ধনে ইভ্যালি মার্চেন্ট ও ভোক্তাদের সমন্বয়ক মো. নাসির উদ্দিন বলেন, ‘ইভ্যালি বন্ধে অদৃশ্য শক্তি কাজ করছে। তারা এ প্রতিষ্ঠানে কালো থাবা বসাতে চাইছে, বন্ধ করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে আমাদের টাকাগুলো বানরের রুটি ভাগের মতো হোক, সেটা চাই না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আদালতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, যথেষ্ট শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে। গ্রাহক-মার্চেন্ট সবাই ইভ্যালিকে সময় দিতে চাইছে। তাহলে সরকারের অসুবিধা কোথায়? প্রয়োজনে আমরা এটার বিরুদ্ধে আদালতের শরণাপন্ন হবো।’

নাসির উদ্দিন বলেন, ‘দেশে অনেক ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান হয়েছে। কিন্তু সেই হিসেবে ই-ক্যাবের ভূমিকা খুবই দুর্বল। দেশের স্বার্থে ই-ক্যাবকে আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

মানববন্ধনে গ্রাহকরা বলেন, ই-কমার্স প্লাটফর্মগুলোকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে লাইসেন্স নেওয়া বাধ্যতামূলক করতে হবে। ই-কমার্স বাংলাদেশের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় খাত। এ খাতে হাজার হাজার উদ্যোক্তা সৃষ্টি হচ্ছে এবং লাখ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হচ্ছে। এ সেক্টরকে সরকারিভাবে সুরক্ষা দিতে হবে।

গ্রাহক-মার্চেন্টদের ৭ দফা দাবি
ইভ্যালি এমডি রাসেলকে নজরদারিতে রেখে ব্যবসা করার সুযোগ দেওয়া, এস্ক্রো সিস্টেম চালু হওয়ার আগে অর্ডার করা পণ্য ডেলিভারি দিতে কমপক্ষে ছয় মাস সময় দেওয়া, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে ই-ক্যাব, পেমেন্ট গেটওয়ে, মার্চেন্ট এবং ভোক্তাদের প্রতিনিধিদের সমন্বয় কমিটি গঠন করা, করোনাকালীন সময়ে বিভিন্ন খাতের মতো ই-কমার্স প্লাটফর্মগুলোকে প্রণোদনা দেওয়া ইত্যাদি।

এসএম/এএএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]