প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে প্রধানমন্ত্রী সহানুভূতিশীল: মোস্তাফা জব্বার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৬ পিএম, ২৩ অক্টোবর ২০২১

প্রতিবন্ধীসহ সমাজের পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীকে সমাজের মূলধারায় সম্পৃক্ত করতে হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় এই জনগোষ্ঠীর কল্যাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত সহানুভূতিশীল।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) ‘বিশ্ব সাদাছড়ি প্রতিরক্ষা’ দিবস উপলক্ষে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। অনলাইনের মাধ্যমে তিনি সভায় যুক্ত হন।

এসময় দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য সাদাছড়িকে ডিজিটাল করতে প্রয়োজনীয় গবেষণা ও উন্নয়ন কাজ দায়িত্বের সঙ্গে সম্পাদন করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, এ বিষয়ক সফটওয়্যার উন্নয়ন মোটেও কঠিন হবে না। ডিজিটাল প্রযুক্তির সর্বাধুনিক ভার্সন ৫-জি প্রযুক্তি যাতে প্রতিবন্ধীদের কাজে লাগে সে বিষয়ে সহায়তা করা হবে।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কেবল প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর জন্যই নয়, সমাজের দুস্থ, অসহায় পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর প্রতি অত্যন্ত সহানুভূতিশীল। দেশের ৫০ বছরের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর পর তার মতো অন্য আরেকজন ছিলেন না যিনি সমাজের অধিকার বঞ্চিত অবহেলিত মানুষের জন্য গভীর মমতায় পাশে দাঁড়িয়েছেন।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য ব্রেইল সফটওয়্যার উন্নয়নে তার উদ্যোগের কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে প্রতিবন্ধীদের সমস্যা নিয়ে যুক্ত থেকেছি। এরই ধারাবাহিকতায় ব্রেইল সিস্টেম করার জন্য বাংলাদেশের মুদ্রণ ও প্রকাশনায় প্রতিবন্ধীদের সম্পৃক্ত করতে পেরেছিলাম।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য ডাক অধিদপ্তরের কিছু সুবিধাবিষয়ক দাবির উত্তরে মন্ত্রী বলেন, পোস্ট অফিসে যা করার আছে তা আগামীকাল থেকেই সমাধান শুরু হবে। বাংলা ইউনিকোড ব্যবহারেও দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য কাজ করা হবে বলে জানান তিনি।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, শিশু শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত যত বই আছে তা সফটওয়্যারে রূপান্তর করেছি। এটি প্রতিবন্ধীদের উপযোগী করতে যা যা করণীয় তাই করা হবে।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধে সাদাছড়ি ব্যবহারকারীদের মুক্ত চলাচল নিশ্চিত করতে ১৫টি সুপারিশ করা হয়।

এর মধ্যে দেশীয় প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে উন্নত মানের সাদাছড়ি তৈরি, নামমাত্র মূল্যে সাদাছড়ি ব্যবহারকারীদের মধ্যে তা বিতরণ, সাদাছড়ি ব্যবহারে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের উৎসাহিত করতে এবং এর ব্যবহার কৌশল সম্পর্কে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা, ইমারত, রাস্তা, ফুটপাত, রেলওয়ে প্লাটফর্মসহ পাবলিক প্লেস দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের উপযোগী করে তৈরি করা, দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য ব্রেইল বই ও অন্যান্য মুদ্রণ ডাক মাশুল মুক্ত প্রেরণ করার সরকারি নির্দেশ সম্পর্কে ডাক অধিদপ্তরের মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের অবহিত করা, ডাকঘর সঞ্চয়ে প্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ স্কিম চালু, মোবাইল অপারেটরসমূহে প্রতিবন্ধীদের জন্য কর্মক্ষেত্রে শতকরা একভাগ কোটা চালু, পিএবিএক্সের উপযোগী টকিং সফটওয়্যারের ব্যবস্থা করা, এনড্রয়েড বিজয় কীবোর্ড প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ব্যবহার উপযোগী করা, বিজয় শিশু শিক্ষা প্রতিবন্ধী শিশুদের উপযোগী করা, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের চলাচলে ডিজিটাল প্রযুক্তি নির্ভর সফটওয়্যার উদ্ভাবন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

ভিজুয়ালি ইম্পেয়ার্ড পিপলস সোসাইটির সভাপতি নাসরিন জাহানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বক্তৃতা করেন।

এইচএস/জেডএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]