সরকারি প্লট জালিয়াতি, দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ দুদকের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৫৭ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০২১

রাজউক এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্টদের যোগসাজশে প্রতারণার মাধ্যমে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানের বেশ কয়েকটি সরকারি প্লট জালিয়াতির অভিযোগ তদন্তের অংশ হিসেবে বিএনএস গ্রুপ অব কোম্পানিজের চেয়ারম্যান এম এন এইচ বুলু ও আনোয়ার আলম নামের এক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার (২৪ অক্টোবর) তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন দুদক পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্লা ও উপ-পরিচালক সুভাস দত্ত।

দুদকের জনসংযোগ দপ্তর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

আরও জানা গেছ, মিরপুরের বাসিন্দা আনোয়ার আলম রাজউক এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদফতরের সংশ্লিষ্টদের যোগসাজশে প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে ঢাকার গুলশান, ধানমন্ডিসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানের বেশ কয়েকটি সরকারি প্লট জালিয়াতি করেন।

এরপর বিএনএস গ্রুপ অব কোম্পানিজের চেয়ারম্যান এম এন এইচ বুলুর কাছে গুলশান-২ এর বাণিজ্যিক এলাকার হোল্ডিং নং- ২০ ও ২০এ বিক্রি করেন।

দুদক সূত্রে আরও জানা গেছে, রাজউক এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্ত অধিদপ্তর থেকে অভিযোগ সংশ্লিষ্ট রেকর্ডপত্রের কপি সংগ্রহ করা হয়েছে। অভিযোগ বিষয়ে কয়েকজনকে এরই মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দুদকের অনুসন্ধান চলমান আছে।

জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এম এন এইচ বুলু বলেন, আমাকে কিছু প্রশ্ন জিজ্ঞেস করা হয়েছে। বিস্তারিত আপনারা দুদকের কাছ থেকে জেনে নেন।

২০১৮ সালের ৭ অক্টোবর প্রায় ১৩৪ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে বিএনএস গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বিএনএস সেন্টারের মালিক বুলুর বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক। মামলায় তার বিরুদ্ধে ১০৯ কোটি ১৭ লাখ ৫৬ হাজার ৯৮১ টাকা মূল্যমানের সম্পদের তথ্য গোপন এবং ২৪ কোটি ৭৮ লাখ ৬৬ হাজার ৬২২ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়।

তবে সে বিষয় নিষ্পত্তি হয়ে গেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের জানান বুলু।

এসএম/এমএইচআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]