ভূমির অবক্ষয় রোধে রোডম্যাপ অনুযায়ী কাজ করছে সরকার

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:১৫ পিএম, ২৮ অক্টোবর ২০২১
ফাইল ছবি

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেছেন, সরকার মরুময়তা, ভূমির অবক্ষয় ও খরা মোকাবিলায় আন্তরিকভাবে কাজ করছে। পরিবেশ অধিদপ্তর ভূমি ব্যবহার মানচিত্র হালনাগাদকরণ, ভূমি অবক্ষয়ের কারণ ও সূচক চিহ্নিতকরণ, অবক্ষয় রোধ, প্রশমন বা পুনর্ব্যবহারযোগ্য করার মাধ্যমে অবক্ষয়মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে একটি রোডম্যাপ তৈরি করেছে। প্রণীত রোডম্যাপে জাতীয় ও বিভাগীয় পর্যায়ে চিহ্নিত আটটি থিমেটিক এরিয়ায় সমন্বিতভাবে কাজ করে ভূমি অবক্ষয় রোধ করা সম্ভব হবে।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) আগারগাঁওস্থ পরিবেশ অধিদপ্তরে ‘ন্যাশনাল রোডম্যাপ ফর কমব্যাটিং ল্যান্ড ডিগ্রেডেশন ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, ভূমি অবক্ষয় সমস্যার সমাধানে প্রয়োজন সব অংশীজনের কার্যকরী প্রচেষ্টা। এ লক্ষ্যে সাসটেইনেবল ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পটির মাধ্যমে পরিবেশ অধিদপ্তরের সঙ্গে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনিস্টিটিউট, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও সিইজিআইএস নিজ নিজ কর্মপরিধির মধ্যে থেকে কাজ করছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে অনেক টেকসই ভূমি ব্যবহার প্রযুক্তি রয়েছে, যার মাধ্যমে আমরা ভূমি অবক্ষয় শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে সক্ষম হবো। ইকোসিস্টেম বেজড এপ্রোচেস টু এডাপ্টেশন কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। ক্ষুদ্র আয়তনের বৃহৎ জনসংখ্যার এদেশে ভূমির অবক্ষয় রোধ করতে আমাদের সবাইকে একযোগে আন্তরিকভাবে কাজ করার আহ্বান জানাই।

পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আশরাফ উদ্দিনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার, সচিব মো. মোস্তফা কামাল, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) আহমদ শামীম আল রাজী, প্রকল্প পরিচালক, ড. মু. সোহরাব আলি, সাবেক সচিব প্রফেসর ড. জহুরুল করিম প্রমুখ।

এমইউ/এআরএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]