সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করেছে আঞ্চলিক লোকজ ঐতিহ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৩৮ এএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

বাংলাদেশের একেক অঞ্চলের রয়েছে নিজস্ব ঐতিহ্য, কৃষ্টি ও আচার। আঞ্চলিক এসব লোকজ ঐতিহ্যের চর্চা বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে করেছে বৈচিত্র্যময় এবং সমৃদ্ধ। আবহমান বাংলাদেশের আঞ্চলিক সংস্কৃতিকে সবার সামনে তুলে ধরতে ‘বিজয়ের ৫০ বছর: লাল সবুজের মহোৎসব’ এ অঞ্চলভিত্তিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

বুধবার (৮ ডিসেম্বর) এফবিসিসিআই আয়োজিত উক্ত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন এফবিসিসিআই’র সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন। ১৬ দিনব্যাপী চলবে এই অনুষ্ঠান।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, চট্টগ্রাম ও রংপুরে নিজস্ব সংস্কৃতিতে উঠে এসেছে চিরন্তন বাংলার নিত্যদিনের জীবন-যাপন ও আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন। গান, পালা ও কবিতার শব্দে-ছন্দে অঞ্চলের নিজস্ব গণ্ডি ছাড়িয়ে বাংলাদেশের জাতীয় সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, দেশ আমাদের এক সময় শোষণ করেছে, সেই পাকিস্তানের অর্থনীতিবিদরা এখন তাদের দেশের অর্থনীতিকে বাংলাদেশের মতো করতে চায়। স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশ যেভাবে এগিয়েছে, তাতে সারাবিশ্ব অবাক হয়েছে। যেখানেই যাই, সবাই বলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর হাতে যাদুর কাঠি আছে।

এফবিসিসিআই’র সাবেক সভাপতি ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন বলেন, বিজয়ের ৫০ বছরের পুরোটা সময় মসৃণ ছিল না। স্বাধীনতার ৫০ বছর বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় ২৯ বছরই ছিল স্বৈরাচারের আমলে। আওয়ামী লীগের শাসনামলেই দেশের উন্নতি সবচেয়ে বেশি হয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বের কারণেই বিশ্বের অন্যতম অর্থনীতিতে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে ঢাকাকে সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন রাখতে সবার প্রতি আহ্বান জানান ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

‘বিজয়ের ৫০ বছর: লাল সবুজের মহোৎসব’ এর নবম দিন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হবে রাজশাহী ও বরিশাল বিভাগের অনুষ্ঠান। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

ইএআর/জেডএইচ/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]