সন্দ্বীপে পালিয়ে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রকে চাপা দেওয়া লরিচালক

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:১৯ পিএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

রাজধানীর বিমানবন্দর থানা এলাকায় বেপরোয়া লরির চাপায় গ্রিন ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী মাহাদি হাসান লিমন (২১) নিহত হন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত লরিচালক মো. ইউসুফ আলীকে (৩৩) গ্রেফতার করেছে পুলিশের গোয়েন্দা উত্তরা বিভাগ। নিহত শিক্ষার্থী গ্রিন ইউনিভার্সিটির টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থবর্ষের ছাত্র ছিলেন।

ডিবি বলছে, নিহত শিক্ষার্থীকে চাপা দিয়ে চালক পালিয়েছিলেন চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ থানার উড়ির চরের বাংলাবাজার এলাকায়। টানা ছয় ঘণ্টা হেঁটে দুর্গম এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গত শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর ৪ ডিসেম্বর নিহত শিক্ষার্থীর বাবা বিমানবন্দর থানায় সড়ক পরিবহন আইনে মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত শুরু করে গোয়েন্দা উত্তরা বিভাগ।

বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) বিকেলে জাগো নিউজকে এসব তথ্য জানান গোয়েন্দা পুলিশের উত্তরা বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) কায়সার রিজভী কোরায়েশী।

তিনি বলেন, ডিবি পুলিশ প্রথমে লরির মালিককে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে চালকের নাম-পরিচয় ও ঠিকানা নেয়। এরপর তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর বুধবার রাতে সন্দ্বীপ থেকে ইউসুফকে গ্রেফতার করা হয়। দুর্ঘটনার পর চালক ফোন বন্ধ রাখে, ঘন ঘন নিজের অবস্থান পরিবর্তন করে। ঢাকায় কয়েক দিন কৌশলে বারবার অবস্থান পরিবর্তনের পর সন্দ্বীপে চলে যায়।

এডিসি কায়সার রিজভী বলেন, চালক ইউসুফ আলী চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ থানার উড়ির চরে অবস্থান করছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল ভোরে সেখানে টানা ছয় ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ঘরবাড়িশূন্য চরের মধ্যে সাপের উপদ্রব থাকা সত্ত্বেও সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

টিটি/এমআরআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]