মজুরি মূল্যায়ন-মহার্ঘ ভাতার দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৫২ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০২২

মজুরি মূল্যায়ন ও মহার্ঘ ভাতার দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন শ্রমিকরা। শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) গুলিস্তান-পল্টন এলাকায় বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির ব্যানারে বিক্ষোভ ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বক্তব্য দেন- সংগঠনের সভাপ্রধান তাসলিমা আখতার। তিনি বলেন, নামধারী কিছু শ্রমিক নেতারা শ্রমিক আন্দোলনকে বিক্রি করছেন। সেই অপ্রকৃতস্থরা শ্রমিক নেতা হতে পারে না। যারা শ্রমিকদের দাবি-দাওয়া, আন্দোলনকে মালিক ও সরকারি সংস্থার কাছে বিক্রি করে, তারা শ্রমিকের পক্ষে হতে পারে না। শ্রমিকের সঙ্গে বেইমানি যারা করে, তাদের চিনতে হবে।

বক্তারা বলেন, নতুন বছরে শ্রমিকদের পাওনা ও ইনক্রিমেন্ট শ্রম আইনানুযায়ী পরিশোধ করা হয় না, তৈরি হয় অনিশ্চিয়তা। এছাড়া শ্রমিক আইনে বা বেপজা আইনে ইনক্রিমেন্ট বৈষম্য রয়েছে। ইপিজেডে ১০ শতাংশ এবং ইপিজেডের বাইরে ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট দেওয়ার কথা থাকলেও বেশিরভাগ কারখানায় বেতন সমানভাবে পান না।

Germent1.jpg

তারা বলেন, গত ৩ বছরে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য, পরিবহন ভাড়া, বিদ্যুৎ-গ্যাস, বাসা ভাড়া বৃদ্ধি পেয়েছে কয়েক গুণ। এছাড়া করোনাকালের ধাক্কায়ও শ্রমিকদের আয় কমেছে। মূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে শ্রমিকদের জীবন দুর্বিসহ হয়ে পড়েছে।

অন্যদিকে কাজের অভাব ১৫ থেকে ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে যখন মালিকদের আয় বাড়ছে, অর্ডার বাড়ছে, তখন শ্রমিকদের এই ঊর্ধ্বগতির বাজারে পিষ্ঠ না করে মজুরি মুল্যায়ন এবং মহার্ঘ ভাতা দেওয়া সময়ের দাবি।

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ শ্রমিক সংহতির সাধারণ সম্পাদক জুলহাস নাইন বাবু, অর্থ সম্পাদক প্রবীর সাহা, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক দীপক রায়, আশুলিয়ার সভাপ্রধান বাবুল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জিয়াদুল ইসলাম, সাভারের সংগঠক সেলিনা আক্তার ও রূপালী আক্তার, ফিরোজ আলী, আসাদুল ইসলামসহ অন্যান্য নেতারা।

এমআইএস/এমআরএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]