ছুটির দিনে আহসান মঞ্জিলে দর্শনার্থীদের ভিড়

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৪৩ পিএম, ০৬ মে ২০২২

সাপ্তাহিক ছুটির দিনে এমনিতেই ভিড় থাকে পুরান ঢাকার আহসান মঞ্জিলে। এর সঙ্গে ঈদের ছুটিতে দর্শনার্থীদের চাপ আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে দর্শনীয় এই স্থানটিতে। ছোট-বড় সব বয়সী লোকজনই ঘুরতে এসেছেন নবাবী আমলের এই স্থাপনায়।

শুক্রবার (৬ মে) বিকেলে রাজধানীর সদরঘাট এলাকায় অবস্থিত আহসান মঞ্জিলে গিয়ে এমন চিত্রই দেখা গেছে। ঈদের ছুটিসহ সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় ঊনবিংশ শতাব্দীর এই স্থাপনা দেখতে এসেছেন কয়েক হাজার দর্শনার্থী।

কেউ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে, কেউবা আবার বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে ঘুরতে এসেছেন। গুলিস্তান থেকে আসা আসমা আক্তার মায়া জাগো নিউজকে বলেন, আজই প্রথম ঘুরতে বের হলাম। আগেকার আমলের রাজাদের অনেক কিছুই দেখলাম ভিতরে।

jagonews24

‘সরাসরি এখানে আসতে পেরে ভালোই লাগছে। করোনার কারণে তো অনেক জায়গাই বন্ধ ছিল। এবার সেটা নেই, ঘুরে দেখতে পেরেছি ঐতিহাসিক এই স্থাপনাটি।’

মিরপুর থেকে আসা মো. ইসমাইল হোসেন দিপু বলেন, নবাবদের সম্পর্কে অনেক কিছুই জেনেছি বই-পুস্তকে। নবাবী আমলের অনেক কিছুই পড়েছি। কিন্তু আজ সবকিছুই বাস্তবে এসে দেখলাম। এতে খুব ভালো লাগছে।

jagonews24

শনিরআখড়া থেকে আসা ইমরান হোসেন রাহাত বলেন, প্রথমবার এখানে ঘুরতে এসেছি। বন্ধুদের সঙ্গে এসেছি, খুব ভালো লাগছে। পরিবেশটা ভালো। তবে লোকজন একটু বেশি মনে হচ্ছে।

ঈদে দর্শনীয় স্থানগুলোতে ঘুরতে এসেছে শিশুরাও। শেওড়াপাড়া থেকে বাবা মায়ের সঙ্গে আহসান মঞ্জিল দেখতে এসেছেন আফিয়া মোবাশ্বিরা বিভা। জাগো নিউজকে বিভা বলেন, এবারই প্রথম বাবা মায়ের সঙ্গে এখানে এসেছি। নবাবী আমলের অনেক কিছুই দেখলাম। খুব ভালো লাগছে এগুলো দেখে।

jagonews24

আহসান মঞ্জিলের সহকারী নিরাপত্তা পরিদর্শক মোখমাইনোজ্জামান জাগো নিউজকে বলেন, সাধারণত সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ৫টা পর্যন্ত মঞ্জিল খোলা থাকে। কিন্তু এখন ঈদের ছুটির পাশাপাশি শুক্রবার হওয়ায় লোকজনের চাপ অনেক বেশি।

‘যারা অনলাইনে টিকিট কাটতে পেরেছেন তাদের আমরা প্রবেশ করতে দিয়েছি। তবে লোকজন এতো বেশিই ভিড় করেছে যে, অনেকে জোর করে ভেতরে প্রবেশ করেছেন। তবে ভেতরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে যেন দর্শনার্থীদের কোনো অসুবিধা না হয়।’

আরএসএম/এমপি/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]