কামরাঙ্গীরচরে ৬ দিন ধরে গ্যাস বন্ধ, তিতাসের এমডির পদত্যাগ দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৩৫ পিএম, ১৬ মে ২০২২

রাজধানীর পুরান ঢাকার কামরাঙ্গীরচর এলাকায় গত ছয় দিন ধরে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে এলাকাবাসী। এ ঘটনায় তিতাস গ্যাসের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) পদত্যাগ দাবি করেছেন বিক্ষোভকারীরা। গত ১০ মে থেকে তিতাস গ্যাস কোম্পানি লিমিটেড ওই এলাকার গ্যাস সংযোগ বন্ধ রেখেছে। 

সোমবার (১৬ মে) বেলা সাড়ে ১১টায় কামরাঙ্গীরচরের পূর্ব রসুলপুর ২নং ব্রিজ রোডে এ বিক্ষোভ মিছিল করেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

মানববন্ধনে পূর্ব রসুলপুররের বাসিন্দা মোশারফ হোসেন বলেন, অবৈধ লাইন কীভাবে আসে। তিতাসের লোকজন জড়িত না থাকলে এতো লাইন হওয়ার কথা না। তারা মাস শেষে অবৈধ গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে যায়। এ দায় কেন সাধারণ ভোক্তাদের উপর চাপিয়ে দেবে?

Gas-1.jpg

তিনি আরও বলেন, যারা প্রকৃত গ্যাস বিল দেয় তাদের ওপর সম্পূর্ণ (দায়ভার) চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। এজন্য তিতাস গ্যাসের এমডির পদত্যাগ চাই ও যেসব দুর্নীতিবাজ কর্মচারী আছে তাদের অপসারণ চাই। এই কাজটি তারাই করছে। কেন আমরা গ্যাস বিল দিয়েও ভুগবো?

অবৈধ গ্যাস সংযোগ বন্ধ করে দেওয়ার দাবি জানিয়ে মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, যারা অবৈধ লাইন নিয়েছে, তাদের লাইনগুলো বন্ধ করে দেওয়া হোক। আমরা গরীব মানুষ, কাজ করে খাই, আমাদের লাইন দেওয়া হোক।

বিক্ষোভে অংশ নেওয়া আব্দুর রহমান বলেন, আমরা নিয়মিত ভাড়া (গ্যাস বিল) দেই। এখন অবৈধ সংযোগ ও বাড়ির মালিকরা বিল না দেওয়ায় গ্যাস সংযোগ কেটে দিয়েছে। যারা বিল দেয়নি, তাদের সংযোগ কেটে দিয়ে যারা দিয়েছে তাদেরটা চালু করে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

মেরিনা আক্তার নামের এক নারী জাগো নিউজকে বলেন, বাড়িওয়ালাদের বিল না দেওয়ার কারণে যদি (গ্যাস সংযোগ) কেটে দেয়, তাহলে এটা খুবই দুঃখজনক। ভাড়াটিয়ারা নিয়মিতই ভাড়া ও বিল দেয়। যেসব বাড়িওয়ালারা বিল দেয় না, তাদের লাইন কেটে দিয়ে বাকিদের সংযোগ দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

Gas-1.jpg

রান্না করতে অনেক সমস্যা হয় জানিয়ে রানী নামের আরেক নারী জাগো নিউজকে বলেন, বাসায় চুলা দিয়ে রান্না করতে দেয় না। আবার বাইরে থেকে যে প্রতিদিন খাবার কিনে আনবো, সেই টাকা নেই। আমরা গরীব মানুষ, কাজ করে খাই। না খেলে কাজ করা যায় না। আমার একটা মেয়ে আছে। আজ সকালে না খেয়েই তাকে স্কুলে যেতে হয়েছে। প্রতিদিনই এখন এমন হচ্ছে।

এদিকে, কোনো নোটিশ ছাড়া সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন রসুলপুর এলাকার বাসিন্দা শামসুল হক দুররানী। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, বিনা নোটিশে গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। বকেয়া পরিশোধ না করায় গত ১০ মে সংযোগ কেটে দিয়েছে। তবে যারা পরিশোধ করেছে তাদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন কেন করা হয়েছে?

তিনি আরও বলেন, তিতাসের এমডি জানিয়েছে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন না করলে তারা সংযোগ দিবে না। সংযোগ বিচ্ছিন্নের দায়িত্ব কি আমাদের নাকি তাদের? অবৈধ সংযোগগুলো তারাই দেয় ও তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়েই এটা করা হয়। সেই টাকা নিয়ে তাদের কর্মকর্তাদের মধ্যে গন্ডগোল লাগায় এখন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে।

এ সময় তিনিসহ বিক্ষোভে অংশ নেওয়া সবাই দ্রুত গ্যাস সংযোগ পুনঃস্থাপন ও তিতাসের এমডির পদত্যাগসহ কর্মকর্তাদের অপসারণের দাবি জানান।

আরএসএম/এমপি/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]