বিদ্যুৎ খাতে সরকার ভর্তুকি দিতে চায় কি না, প্রশ্ন ক্যাব উপদেষ্টার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৫০ পিএম, ১৮ মে ২০২২
বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি

বিদ্যুৎ খাতে সরকারের বিদ্যমান ভর্তুকি রয়েছে, সরকার তা অব্যাহত রাখতে চায় কি না, তা জানতে চেয়েছেন কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) জ্বালানি উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শামসুল আলম। তবে এ প্রশ্নের কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা।

পাইকারিভাবে বিদ্যুতের দাম ৩ টাকা ৩৯ পয়সা বাড়িয়ে ৮ টাকা ৫৬ পয়সা করার প্রস্তাব করেছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। এত দিন সরকার ৩ টাকা ৩৯ পয়সা ভর্তুকি দিয়ে আসছিল। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের প্রস্তাব গ্রহণ করলে সরকারের আর ভর্তুকি দেওয়ার প্রয়োজন পড়ছে না। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ক্যাব উপদেষ্টা জানতে চান, সরকার ভর্তুকি দিতে চায় কি না।

বুধবার (১৮ মে) রাজধানীর বিয়াম ফাউন্ডেশনের মিলনায়তনে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর এই শুনানির আয়োজন করে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন। এসময় বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের বিভিন্ন প্রশ্ন করেন ক্যাব উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শামসুল আলম।

শামসুল আলম জানতে চান, ২০২১-২২ অর্থবছরে পাইকারি বিদ্যুতে আর্থিক ঘাটতি প্রায় ৩০ হাজার ২৫২ কোটি টাকা। বিদ্যমান পাইকারি মূল্য হার ৫ টাকা ১৭ পয়সা। মূল্য হার ঘাটতি বিবেচনায় নিয়ে পাইকারি বিদ্যুতের রাজস্ব চাহিদা প্রাক্কলন করা হয়েছে এবং মূল্য হার ৮ টাকা ৫৮ পয়সা করার প্রস্তাব করা হয়েছে। ঘাটতি সমন্বয়ে সরকারি ভর্তুকি বিবেচনা করা হয়নি। তার মানে যখন বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড দাম বাড়ানোর প্রস্তাব তৈরি করে, তখন সরকার ভর্তুকি দিতে রাজি হয়নি? সরকার কি ভর্তুকি দিতে সম্মত না?

প্রশ্নের উত্তরে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের অর্থ পরিদপ্তরের উপ-পরিচালক জুলফিকার আলী বলেন, ‘আমাদের যা খরচ, তাই ব্যয় ধরেছি। সরকার চাইলে এতে ভর্তুকি দিতেও পারে, নাও দিতে পারে।’

এরপর ক্যাব উপদেষ্টা জানতে চান, প্রস্তাব পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে পাইকারি বিদ্যুৎ সরবরাহের বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যয় সংকোচন করে ঘাটতি কমানোর কোনো কৌশল প্রস্তাব করা হয়নি। কেবলমাত্র মূল্য হার বাড়ানোর মাধ্যমে ঘাটতি সমন্বয়ের প্রস্তাব করা হয়েছে। ব্যয় কমিয়ে ঘাটতি কমানোর কী কোনো সুযোগ নেই?

শুনানিতে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা, বিইআরসির সদস্য ও বিদ্যুৎ-জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা অংশ নেন। তবে ক্যাব উপদেষ্টার কোনো প্রশ্নেরই সদুত্তর দিতে পারেননি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

এমআইএস/এএএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]