শ্রমিকদের রেশন ও আবাসনের জন্য বাজেটে বরাদ্দ দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:১০ এএম, ১৯ মে ২০২২

আগামী বাজেটে শ্রমিকদের জন্য রেশন, বিনামূল্যে চিকিৎসা ও আবাসনসহ সামাজিক সুরক্ষায় বিশেষ বরাদ্দের দাবি জানিয়েছেন শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ)।

বুধবার (১৮ মে) সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত এক সমাবেশ থেকে এসব দাবি জানানো হয়। পরে অর্থমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি পেশ করেন স্কপের নেতারা।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি)
অর্জনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এসডিজির ১৭ টি লক্ষ্যের প্রথমটি হলো কোনো দারিদ্র থাকবে না, দ্বিতীয়টি খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টির উন্নয়ন, অষ্টম লক্ষ্য শোভন ও পূর্ণকালীন কাজ নিশ্চিত করা ও দশম লক্ষ্য বৈষম্য বিলোপ।

তারা বলেন, করোনা পরবর্তীসময়ে দারিদ্র ও অপুষ্টি বেড়েছে, কর্ম হারিয়ে অনিশ্চয়তায় ধুকছে লাখ লাখ পরিবার। পাশাপাশি ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য তীব্র হয়েছে। এ সময়ে এসডিজি অর্জন করতে হলে প্রায় ৭ কোটি শ্রমজীবী মানুষকে সামাজিক সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে। তাদের পুষ্টি নিশ্চিত করতে ভর্তুকি মূল্যে নিত্যপণ্যের রেশনিং ব্যবস্থা চালু করতে হবে। এছাড়া সুস্থ কর্মী উৎপাদনের অন্যতম শর্ত তাই শ্রমজীবীদের জন্য বিনামূল্যে চিকিৎসা ও আবাসন নিশ্চিত করতে হবে।

দেশে প্রাতিষ্ঠানিক কর্মক্ষেত্রের সুযোগ সংকুচিত হচ্ছে জানিয়ে তারা বলেন, অপ্রাতিষ্ঠানিক শ্রমিকদের বার্ধক্যকালীন নিরাপত্তার জন্য সার্বজনীন পেনশন স্কিম চালু করতে হবে।

বাজেট বরাদ্দে নিম্নলিখিত নয়টি বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়ার জন্য অর্থমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি পেশ কিরা হয়। 

সেগুলো হলো- 

১. ক্রমবর্ধমান দ্রব্যমূল্যের আঘাত থেকে রক্ষার জন্য শ্রমিক কর্মচারীসহ নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য ভর্তুকি মূল্যে রেশন, বিনামূল্যে চিকিৎসা ও সুলভ মূল্যে আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য বরাদ্দ করা।

২. কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনায় আহত হলে চিকিৎসা, ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসনসহ সামাজিক বেষ্টনীর জন্য বরাদ্দ রাখা।

৩. বাজেটে পাট, চিনি শিল্পসহ রাষ্ট্রীয় কল-কারখানাসমূহ পুনরুদ্ধার ও রক্ষার জন্য বরাদ্দ রাখা।

৪. শ্রমিকদের স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা ও সামাজিক সুরক্ষায় সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ রাখা। শিল্প ঘন এলাকায় শ্রমজীবী হাসপাতাল, শিশু যত্ন কেন্দ্র স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় বরাদ্দ রাখা।

৫. অর্থ পাচারকারী, ঋণ খেলাপিদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করে প্রাপ্ত অর্থ শ্রমিকদের কল্যাণে ব্যয় করা।

৬. দুর্নীতি রোধে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ না রেখে তা বাজেয়াপ্ত ও আদায় করে উৎপাদন খাতে বিনিয়োগ করার উদ্যোগ নেওয়া।

৭. শ্রমজীবীদের জন্য সার্বজনীন পেনশন স্কিম চালু করা।

৮. ফিরে আসা প্রবাসী শ্রমিকদের পুনর্বাসনের জন্য বিশেষ বরাদ্দ বাড়ানো।

৯. কৃষিভিত্তিক শিল্প ও কর্মসংস্থান ভিত্তিক উন্নয়নে গুরুত্ব আরোপ করা।

স্কপ যুগ্ম সমন্বয়ক চৌধুরী আশিকুল আলমের সভাপতিত্বে ও আহসান হাবিব বুলবুলের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন স্কপ নেতা শহিদুল্লাহ চৌধুরী, মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ, শাহ মােহাম্মদ জাফর, আব্দুল কাদের হাওলাদার, রাজেকুজ্জামান রতন, কামরুল্ল আহসান, শামীম আরা প্রমুখ।

আরএসএম/আরএডি

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]