ফতুল্লায় গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ: দগ্ধ একজনের মৃত্যু

ঢামেক প্রতিবেদক
ঢামেক প্রতিবেদক ঢামেক প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৩৮ পিএম, ১৯ মে ২০২২

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা পাইলট স্কুলের পাশে একটি বাসায় গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণে দগ্ধ আনোয়ার হোসেন (৪০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) সকাল ১০টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) তার মৃত্যু হয়।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা.আইয়ুব হোসেন জানান, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে একই পরিবারের চারজন দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে এসেছিল। তাদের মধ্যে আনোয়ার হোসেন হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার সকাল মারা গেছে। তার শরীরের ১৭ শতাংশ দগ্ধ ছিল। এ ছাড়া দগ্ধ বাকি তিনজনের মধ্যে নিহত আনোয়ারের স্ত্রী মোছা. রোজিনা আক্তারের ২৪ শতাংশ তাদের ছেলে রুহান ৩৫ শতাংশ ও রোমান ৬ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। রোমানকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আর দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলেও জানান তিনি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া জানান, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে একই পরিবারের চারজন দগ্ধ হয়ে এসেছে। তাদের মধ্যে আনোয়ার হোসেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্নে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। তার স্ত্রী ও ছেলে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আরেক ছেলেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। নিহত মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে অবগত করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার (১০ মে) ভোরে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা পাইলট স্কুলের পাশে একটি বাসায় গ্যাস লিকেজ থেকে আগুন লেগে একই পরিবারের চারজন দগ্ধ হন। দগ্ধরা হলেন- আনোয়ার হোসেন (৪০), রোজিনা আক্তার (৩৫), রোমান (১৭) ও রোহান (৯)। তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট ভর্তি করা হয়।

কাজী আল-আমিন/এমএএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]