পি কে হালদারকে দেশে এনে বিচারের দাবি পিপলসের আমানতকারীদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৩৫ পিএম, ২২ মে ২০২২
পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিতে বিনিয়োগ করা টাকা ফেরত পেতে সংবাদ সম্মেলন করেন আমানতকারীরা

দেশের জনগণের অর্থের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানির আমানতকারীরা। এসময় তারা আটকে যাওয়া টাকা ফেরত পেতে সরকারকে পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ জানান। একইসঙ্গে পি কে হালদারকে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের দাবি জানান তারা। 

রোববার (২২ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ দাবি জানানো হয়। পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিতে বিনিয়োগ করা ছয় হাজার আমানতকারীর পক্ষে মো. আতিকুর রহমান আতিক এ দাবি জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে লিখিত বক্তব্যে আতিকুর রহমান বলেন, আমাদের নিঃস্ব-অসহায় জীবনের কথা বিবেচনা করে যেন পিপলস লিজিংয়ে রাখা অর্থ দ্রুত ফেরত পেতে পারি সেই জন্য আপনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি। একই সঙ্গে অবিলম্বে পিপলস লিজিং লুটপাটে জড়িত পি কে হালদারসহ দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তিনি। পি কে হালদারকে দেশে বিচারের আওতায় আনা এবং পিপলস লিজিংয়ে আমানতের অর্থ লুটে জড়িতরা যাতে বিদেশে পালিয়ে যেতে না পারেন সেজন্য তাদের বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার দাবি জানান। এছাড়াও অভিযুক্তদের সম্পত্তি ও ব্যাংক হিসাব জব্দ এবং তাদের গ্রেফতার করা একান্ত প্রয়োজন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

আতিকুর রহমান আরও বলেন, আমরা মনে করি বাংলাদেশ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ একান্ত প্রয়োজন। পিপলস লিজিংয়ের ব্যক্তি ও ক্ষুদ্র আমানতকারীদের আমানতের অর্থ দ্রুত ফিরিয়ে দিয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে রক্ষা করুন। বর্তমান সরকার যেভাবে ফারমার্স ব্যাংকের অবসায়ন না করে পদ্মা ব্যাংক নামে পুনর্গঠন করেছে, ঠিক সেভাবেই পিপলস লিজিং পুনর্গঠন করে দ্রুত গ্রাহকদের অর্থ ফেরত দেওয়ার দাবি জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিতে ব্যক্তি ও ক্ষুদ্র ছয় হাজার আমানতকারীদের পক্ষে গড়া সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রানা ঘোষসহ অন্যান্য আমানতকারীরা উপস্থিত ছিলেন।

এএএম/কেএসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]