‘নারীর শুধু পদায়ন হয়েছে, ক্ষমতায়ন হয়নি’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৪১ পিএম, ২৮ মে ২০২২
আলোচনা সভায় বক্তারা

নারীর শুধু পদায়ন হয়েছে, কিন্তু ক্ষমতায়ন হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের নেতারা। নারীর মজুরিবিহীন গৃহস্থালি কাজের আর্থিকমূল্য নিরূপণ, নারীর কাজের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠাসহ পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছেন তারা।

শনিবার (২৮ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় বক্তারা এসব দাবি করেন।

বক্তারা বলেন, গত কয়েক বছরে নারীরা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে বসেছেন ঠিকই, পদায়ন হয়েছে ঠিকই, কিন্তু ক্ষমতায়ন হয়নি। নারীরা এখনো তার কর্মস্থলে, সমাজে, পরিবারে নানাভাবে অবহেলিত হচ্ছেন। নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত হবে। নারীকে রাষ্ট্রের অংশ হিসেবে মর্যাদা দিতে হবে।

তারা দাবি করেন, স্বামী পরিত্যক্তা, বয়স্ক ও দুস্থ নারীদের পুনর্বাসন করতে হবে এবং একে রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব হিসেবে বিবেচনা করতে হবে; সরকারিভাবে গ্রাম-শহরে এলাকাভিত্তিক মানসম্পন্ন ডে-কেয়ার সেন্টার নির্মাণ এবং জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কর্মজীবী নারীদের জন্য হোস্টেল নির্মাণে বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ দিতে হবে; নারীর স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কর্মসংস্থান, নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, স্বামী পরিত্যক্তা ও দুস্থ নারীদের পুনর্বাসনসহ নারীর উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নে বাজেটে বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে; নারী-পুরুষের সমানাধিকার প্রতিষ্ঠায় সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি করতে সরকারকে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে।

এসময় আলোচকরা নারীর গৃহস্থালি কাজের গুরুত্বারোপ করে বলেন, গৃহস্থালির কাজ ছাড়া কোনো পরিবার ও সমাজ কল্পনা করা যায় না। আর গৃহস্থালির কাজের সিংহভাগই করে থাকেন পরিবারের নারী সদস্যরা। গৃহস্থালি কাজ ছাড়া মানুষের শারীরিক, মানসিক, সাংস্কৃতিক জীবন বিকশিত হওয়া তো দূরের কথা, টিকিয়ে রাখাই কঠিন হয়ে পড়ে। কিন্তু এ কাজের কোনো স্বীকৃতি নেই, মর্যাদা নেই। এমনকি এ কাজকে তাচ্ছিল্যও করা হয় সবসময়।

মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন গবেষণাপত্র উল্লেখ করে ফোরাম থেকে বলা হয়, গবেষণা সংস্থা ‘সানেম’র তথ্য অনুযায়ী, যদি গৃহস্থালি কাজের আর্থিকমূল্য হিসাব করা হয় তাহলে তা দাঁড়াবে নারীর ক্ষেত্রে জিডিপির ৩৯ দশমিক ৫৫ শতাংশ এবং পুরুষের ক্ষেত্রে ৯ শতাংশ। সিপিডির গবেষণায় দেখা গেছে, নারীর কাজের ৭৮ থেকে ৮৭ শতাংশই অর্থনৈতিক হিসাবে আসে না।

‘অর্থনৈতিক দৃষ্টিকোণ, নৈতিক অবস্থান, নারীর অধিকার ও সামাজিক মর্যাদার প্রশ্নে তো বটেই, সামাজিক ন্যায্যতার কারণেও নারীর কাজের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দরকার।’ যোগ করেন বক্তারা।

সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সভাপতি শম্পা বসুর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন- বাসদের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশিদ ফিরোজ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. মনীষা চক্রবর্তী, অধ্যাপক শারমিন নীলিমা, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক দিলরুবা নুরী প্রমুখ।

এমআইএস/ইএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]