আনোয়ারার ইয়াবা কারবারি জসিমের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৪:২৭ এএম, ২৪ জুন ২০২২

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় সম্পদের তথ্য গোপন ও জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ইয়াবা কারবারি জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) দুদক চট্টগ্রাম সমন্বিত জেলা কার্যালয়-২ এ দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক আবদুল মালেক মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার একমাত্র আসামি জসিম উদ্দিন আনোয়ারা থানাধীন খোর্দ্দ গহিরা গ্রামের মৃত আবুল বশরের ছেলে।

মামলায় ৯১ লাখ ৩০ হাজার ২০১ টাকার সম্পদ অর্জনের তথ্য গোপন এবং ৩ কোটি ৫০ লাখ ৬০ হাজার ২০১ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুকে আইনের ২৬(২) এবং ২৭(১) ধারায় অভিযোগ করা হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১৯ সালের আগে বেশ কয়েক বছর ধরে ইয়াবা কারবারের মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের একটি অভিযোগ অনুসন্ধানে নেমে সত্যতা পায় দুদক। প্রাথমিকভাবে অবৈধ সম্পদ অর্জনের সত্যতা পাওয়ার পর দুদক প্রধান কার্যালয়ের অনুমোদন নিয়ে জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে সম্পদ বিবরণী জারি করে দুদক। ২০১৯ সালের ৯ ডিসেম্বর দুদকের কাছে সম্পদ বিবরণী জমা দেন জসিম। দুদকে ৩ কোটি ২২ লাখ ৫ হাজার টাকার স্থাবর এবং ১৪ লাখ টাকার অস্থাবর সম্পদ মিলে ৩ কোটি ৩৬ লাখ ৫ হাজার টাকার সম্পদ ঘোষণা দেন।

পরে দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণী যাচাই-বাছাই ও পর্যালোচনা করে ৪ কোটি ২৭ লাখ ৩৫ হাজার ২০১ টাকার সম্পদের উপস্থিতি পান দুদক কর্মকর্তারা। এতে দুদকে জমাকৃত সম্পদ বিবরণীতে ৯১ লাখ ৩০ হাজার ২০১ টাকার সম্পদ গোপন করার প্রমাণ পায় দুদক। তাছাড়া ঘোষিত সম্পদের ৩ কোটি ৫০ লাখ ৬০ হাজার ২০১ টাকার সম্পদের আয়ের উৎসের সঠিত হিসাব দিতে পারেননি জসিম উদ্দিন।

এ ব্যাপারে দুদক চট্টগ্রাম সমন্বিত জেলা কার্যালয়-২ এর উপ-পরিচালক আতিকুল আলম জাগো নিউজকে বলেন, মাদক কারবারের মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান কার্যক্রম চালানো হয় জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে। পরবর্তীকালে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর তার সম্পদ বিবরণী জমা দেওয়ার নোটিশ জারি করা হয়।

তিনি সম্পদ বিবরণী জমা দিলেও কিছু সম্পদের তথ্য গোপন করেছেন। যে সম্পদ দেখিয়েছেন সেখানেও প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকার বেশি সম্পদের বৈধ আয়ের উৎস তিনি দেখাতে পারেননি। যে কারণে বৃহস্পতিবার তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তদন্তে আরও কারও জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান তিনি।

ইকবাল হোসেন/ইএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]