ঢাকা দক্ষিণে হবে ৬টি ‘কৃষকের বাজার’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৮ পিএম, ২৮ জুন ২০২২

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) ছয়টি কৃষকের বাজার স্থাপন করা হবে। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ঢাকা ফুড সিস্টেম প্রকল্পের আওতায় এসব বাজার স্থাপন করা হবে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর ও মৎস্য অধিদপ্তরের যাচাই করা ১০ জন কৃষক এসব বাজারে প্রতি সপ্তাহে তাদের উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করতে পারবেন। এর ফলে সাশ্রয়ী মূল্যে নিরাপদ খাদ্য কিনতে পারবেন ক্রেতারা।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) ডিএসসিসির শীতলক্ষ্যা হলে ‘ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে এলাকাভিত্তিক কৃষকের বাজার স্থাপন’ প্রকল্পের প্রারম্ভিক সভায় এসব কথা বলেন বক্তারা। অ্যাম্বেসি অব দি কিংডম অব দি নেদারল্যান্ডস, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা এবং ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্টের সম্মিলিত উদ্যোগে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

সভায় বক্তারা বলেন, নগর এলাকার বাসিন্দাদের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যে নিরাপদ খাদ্যের সহজপ্রাপ্যতা বড় চ্যালেঞ্জ। কৃষকের বাজার স্থাপনের মাধ্যমে এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা সম্ভব।

বক্তারা আরও বলেন, কৃষকের বাজার এমন একটি বাজারব্যবস্থা; যেখানে মধ্যস্বত্বভোগীদের অনুপস্থিতিতে কৃষকরা সরাসরি তাদের নিরাপদ খাদ্যপণ্য ভোক্তার কাছে পৌঁছে দেন। এতে ভোক্তাদের জন্য পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যকর খাবারের জোগান নিশ্চিতের পাশাপাশি কৃষকরাও আর্থিকভাবে লাভবান হবে।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ। তিনি বলেন, কৃষক বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরকে শক্তিশালী ভূমিকা পালন করতে হবে। নতুবা নিরাপদ খাদ্য সরবরাহ কঠিন হবে।

ফরিদ আহাম্মদ বলেন, প্রতিটি ওয়ার্ডে কাঁচাবাজার স্থাপন করা হচ্ছে। এসব বাজারে কৃষকের জন্য আলাদা জায়গা দেওয়া গেলে কৃষকের বাজার কার্যক্রমটি টেকসই হবে। একই সঙ্গে খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাও সহজ হবে। এ কার্যক্রমে দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে সহযোগিতা থাকবে।

সভায় আরও বক্তব্য দেন ডিএসসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ফজলে শামসুল কবীর, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ মো. সিরাজুল ইসলাম, অঞ্চল-১ এর নির্বাহী কর্মকর্তা মেরীনা নাজনীন, অঞ্চল-৩ এর নির্বাহী কর্মকর্তা বাবর আলী মীর, প্যানেল মেয়র মো. শহীদ উল্লাহ, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ফুড সিটি কো-অর্ডিনেটর শরীফা পারভীন, ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্টের গাউস পিয়ারী, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কে জে এম আবদুল আউয়াল, সাব-অ্যাসিস্ট্যান্ট লাইভস্টক অফিসার মো. জসীমউদ্দিন, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিএম মোস্তফা কামাল।

প্যানেল মেয়র মো. শহীদ উল্লাহ বলেন, বাজার কার্যক্রম পরিচালনায় একটি সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন। খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য সবজি, মাছ, মাংস পৃথকভাবে বিক্রি করতে হবে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের খাদ্য পরীক্ষাগারে খাদ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

সভায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-২ এর নির্বাহী কর্মকর্তা সুয়ে মেন জো, অঞ্চল-৫ এর নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাখাওয়াত হোসেন সরকার, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার সাসটেইনেবেল এগ্রিকালচার স্পেশালিস্ট জাহাঙ্গীর আলম, ফ্রেশ মার্কেট ট্রেইনার মো. মহিবুল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমএমএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]