রাজধানীতে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে তিনজন

ঢামেক প্রতিবেদক
ঢামেক প্রতিবেদক ঢামেক প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৪০ এএম, ৩০ জুন ২০২২

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে সর্বস্ব হারিয়েছেন তিনজন। তাদের কাছ থেকে মোট ছয় লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে।

বুধবার (৩০ জুন) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে এসব ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগীরা হলেন- মো. কবির হোসেন (২৬), মো. সুজন মিয়া (৪২) ও মো. কিবরিয়া (৪৭)।

কবির হোসেনকে নিয়ে আসা তার সহকর্মী আশরাফুল হায়দার বলেন, কবির কুইক লিংক আইটি কোম্পানির ডেলিভারি ম্যান হিসেবে কর্মরত। আজ নারায়ণগঞ্জে থেকে কালেকশনের সাড়ে তিন লাখ টাকা নিয়ে উৎসব পরিবহনে উঠে। ওই গাড়িতে থাকা অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা তাকে সুকৌশলে কিছু খাইয়ে তার কাছে থাকা টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে কাপ্তানবাজার এলাকায় অচেতন অবস্থায় তাকে পাওয়া যায়। আমরা খবর পেয়ে কবিরকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসি। স্টোমাক ওয়াশ দিয়ে তাকে ভর্তি করা হয়েছে।

অন্যদিকে, শনির আখড়া থেকে নিয়ে আসা সুজন মিয়ার মেয়ের জামাই জাহিদ বলেন, আমার শ্বশুর পুরাতন মোটর পার্টসের ব্যবসা করেন। সোনারগাঁয়ের মোরগাপাড়া বাসে যাওয়ার সময় অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা আচার জাতীয় কিছু খাইয়ে তার কাছে থাকা ৬০ হাজার টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নিয়ে যাই। সেখানে পাকস্থলী ওয়াশ দিয়ে মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

মতিঝিলের স্টেডিয়াম থেকে আসা কিবরিয়ার ছেলে আফতাব বলেন, আমার বাবা একজন ব্যবসায়ী। তিনি ক্যান্টনমেন্ট এলাকার একটি ব্যাংক থেকে দুই লাখ টাকা তুলে মতিঝিলে যাচ্ছিলেন। বাসে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা তাকে চকলেট খাইয়ে অচেতন করে টাকা নিয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতাল নিয়ে স্টোমাক ওয়াশ করা হয়। কিছুক্ষণ পর তার জ্ঞান ফিরলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আমরা বাসায় নিয়ে আসি।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে রাজধানীর বিভিন্ন জায়গা থেকে তিনজন হাসপাতালে এসেছেন। তাদের কাছ থেকে নগদ ছয় লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে।

কাজী আল-আমিন/আরএডি

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]