শেয়ারবাজারে ৬৫ লাখ টাকা খুইয়ে নিঃস্ব সাবেক সেনাসদস্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৫৪ এএম, ০১ জুলাই ২০২২
শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে নিঃস্ব সাবেক সেনাসদস্য কাওছার/ছবি: জাগো নিউজ

পেনশনের টাকা ও ঋণ নিয়ে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করেছিলেন অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্য কাওছার আহমেদ। শেয়ারবাজারে সবমিলিয়ে ৬৫ লাখ টাকা খুইয়েছেন তিনি। এখন প্রতি মাসে ঋণের প্রায় ৬০ হাজার টাকার কিস্তি পরিশোধ করতে হচ্ছে তাকে। এ নিয়ে পাগলপ্রায় শেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারী সাবেক এ সেনাসদস্য। লোকসান ও ঋণের যন্ত্রণা থেকে বাঁচতে সম্প্রতি তিনি নিয়মিত ঘুমের ওষুধ সেবন করছেন। ফলে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

তবে উপায়ান্তর না পেয়ে অসুস্থ শরীর নিয়ে বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে একাই অবস্থান কর্মসূচি করেন কাওছার আহমেদ। কর্মসূচি থেকে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চান। কর্মসূচি চলাকালে অসুস্থ হয়ে পড়েন কাওছার। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও গণমাধ্যমকর্মীরা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠান।

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে নিঃস্ব কাওছার আহমেদ জানান, ২০০৮ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যান তিনি। পেনশনের সব অর্থ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করেন। পাশাপাশি স্বজনদের কাছ থেকে ধার ও ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করেন। শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করা প্রায় সব অর্থ খোয়ান তিনি।

তিনি আরও জানান, বিভিন্নজনের কাছ থেকে তিনি প্রায় ৪০ লাখ টাকা ধার নিয়েছেন। সেই টাকার সুদ বাড়ছে। ঋণ পরিশোধে প্রতি মাসে ৬০ হাজার টাকা কিস্তি পরিশোধ করতে হয়। শেয়ারবাজারে ৬৫ লাখ টাকা খুইয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। শারীরিক ও মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তিনি। লোকসান ও ঋণের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে ঘুমের ওষুধ সেবনে অভ্যস্থ হয়ে পড়েছেন। এভাবে তিনি আত্মহননের পথও বেছে নিয়েছেন। দুর্দিনে তিনি ঋণের বোঝা থেকে বাঁচতে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চান।

জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকায় দায়িত্বরত শাহবাগ থানার পেট্রোল ইন্সপেক্টর আবুল বাশার বলেন, ‘প্রেস ক্লাব চত্বর থেকে অসুস্থ অবস্থায় কাওছার নামে একজনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তার কাছ থেকে ১০ পাতা ঘুমের ট‌্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। পরে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

আরএসএম/এএএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]