শেষ হলো রূপসা রেলসেতুর নির্মাণকাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:০১ এএম, ০৪ জুলাই ২০২২

ভারত সরকারের লাইন অব ক্রেডিটের আওতায় খুলনায় রূপসা রেলসেতুর নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। পাঁচ দশমিক ১৩ কিলোমিটার দীর্ঘ এই ব্রডগেজ সিঙ্গেল-ট্র্যাক সেতুর নির্মাণকাজ গত ২৫ জুন শেষ হয়। সেতুটি খুলনার সঙ্গে মোংলা বন্দরের রেল যোগাযোগ তৈরি করবে।

রোববার (৩ জুলাই) ভারতীয় হাইকমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ভারতীয় ইপিসি ঠিকাদার এলঅ্যান্ডটি এই সেতুর নির্মাণকাজ করেছে। উত্তাল রূপসা নদীর ওপর নির্মিত এই সেতু প্রকৌশলগত দিক থেকে অনন্য। কারণ এর পাইলিংয়ে বেজ গ্রাউটিং নামক একটি বিশেষ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। ভায়াডাক্ট সেকশনে ৮৫৬টি পাইল ফাউন্ডেশন নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া ৭২টি পাইল ফাউন্ডেশন স্টিল ব্রিজ সেকশনের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে, যার গড় পাইল দৈর্ঘ্য ৭২ মিটার।

নদীতে নৌ-চলাচলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সেতুটির রয়েছে অতিরিক্ত বৈশিষ্ট্য। যেমন, নেভিগেশন ফেন্ডার পাইল, যা রয়েছে পায়ারের নিচের দিকে। মূল সেতুর নেভিগেশনাল ক্লিয়ারেন্স স্ট্যান্ডার্ড হাই-ওয়াটার লেভেল থেকে ১৮ মিটারেরও বেশি। স্টিলের তৈরি এই সুপারস্ট্রাকচার সেতুটির নির্মাণসামগ্রী ভারত থেকে সড়ক, সমুদ্র ও আভ্যন্তরীণ নদীপথে আমদানি করা হয়।

রূপসা রেলওয়ে সেতু এবং খুলনা-মোংলা বন্দর রেললাইনটি পণ্য পরিবহনে ব্যাপক সুবিধা সৃষ্টি করবে উল্লেখ করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, মোংলা বন্দরের সঙ্গে সহজ ও উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে এই অঞ্চলের কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত কৃষি পণ্যসহ অনায়াসেই স্থানীয় বাজারগুলোতে ব্যবসা করার সুযোগ পাবেন। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিশিষ্ট স্থানগুলিতে পর্যটনকে ইতিবাচকভাবে প্রভাবিত করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ভারত সরকার বাংলাদেশ সরকারের কাছে সাত দশমিক ৮৬২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের চারটি লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) দিয়েছে। এই লাইন অব ক্রেডিটের আওতায় এখন পর্যন্ত ৪২টি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। যার মধ্যে ১৪টি প্রকল্প সম্পন্ন হয়েছে এবং বাকিগুলি বাস্তবায়নের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে।

এইচএ/কেএসআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]