‘সহজ’ নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে ক্ষোভ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫০ পিএম, ০৪ আগস্ট ২০২২

রেলওয়ের টিকিট বিক্রির অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘সহজ’ এর মাধ্যমে টিকিট কাটতে গিয়ে যাত্রীদের ভোগান্তি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সংসদীয় কমিটির সদস্যরা। বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) সংসদ ভবনে রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ২১তম বৈঠকে এ ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

বৈঠকে অংশ নেন- কমিটির সভাপতি এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, সদস্য রেল মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন, আসাদুজ্জামান নূর, মো. শফিকুল আজম খান, মো. সাইফুজ্জামান, নাছিমুল আলম চৌধুরী, গাজী মোহাম্মদ শাহ নওয়াজ ও নাদিরা ইয়াসমিন জলি।

বৈঠক শেষে কমিটির এক সদস্য জাগো নিউজকে বলেন, সহজ ডট কম নিয়ে সংসদীয় কমিটির বৈঠকে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এ প্ল্যাটফর্মে টিকিট কেনার ক্ষেত্রে যাত্রীকে যেন অধিক অর্থ ব্যয় করতে না হয়, সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করা হয়েছে।

‘এছাড়া, বৈঠকে বিভিন্ন জাতীয় ঘটনার (উৎসব, পরীক্ষা) ক্ষেত্রে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন সক্ষমতার জন্য রেলের বিশেষ কোচ সংযোজনের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।’

জানা যায়, বৈঠকে সহজ ডট কম রেলের টিকিট বিক্রির দায়িত্ব পাওয়ার পর চুক্তি অনুযায়ী সেন্ট্রাল ডাটা সেন্টার, ডিজাস্টার রিকভারি সেন্টার ও কম্পিউটারসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি সরবরাহ করেছে কী না ও বর্তমানে কোন সার্ভারের মাধ্যমে টিকিট বিক্রি করছে সে বিষয়ে আলোচনা হয়।

এছাড়া, রেলের টিকিট জাতীয় পরিচয়পত্রের মাধ্যমে যাত্রীর নিজস্ব নামে বিক্রির বিষয়টি কমিটি থেকে সুপারিশ করা হয়। রেল ভ্রমণের ক্ষেত্রে যাত্রীর যাবতীয় জটিলতা জরুরি ভিত্তিতে সমাধানের জন্য ৯৯৯ কিংবা এর মতো অন্য কোনো নম্বরকে জরুরি সেবা সার্ভিস চালুর সুপারিশ করে কমিটি।

বৈঠকে বেসরকারিভাবে পরিচালিত ট্রেনগুলো থেকে মাসিক রাজস্ব আদায়ের পরিমান, রেলের মাসিক ব্যয় ও গত পাঁচ বছরের তুলনামূলক হিসাব বিবরণী উত্থাপন করা হয়। এছাড়া, বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের জন্য রেলওয়ের সব স্টেশন ও রেলওয়ের অব্যবহৃত জায়গায় সোলার প্যানেল স্থাপন করার বিষয়ে পরীক্ষাপূর্বক প্রতিবেদন উত্থাপন করা হয়।

এছাড়া খুলনা-মংলা ও কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ নির্মাণের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। এ দুটি রেলপথ নির্মাণ কার্যক্রম দ্রুততম সময়ে শেষ করার জন্য সুপারিশ করে কমিটি।

পাশাপাশি বৈঠকে রেল মন্ত্রণালয় ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান পরিচালিত চারটি ট্রেনকে নমুনা ধরে মাসিক আয়-ব্যয়ের তুলনামূলক হিসাব আগামী বৈঠকে উপস্থাপনের আদেশ দেওয়া হয়।

বৈঠকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এইচএস/এসএএইচ/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।