সন্ধ্যার পর রাজধানীতে গণপরিবহন সংকট

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০৭ পিএম, ০৬ আগস্ট ২০২২

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর গণপরিবহনের ভাড়া সমন্বয় করার আগে শনিবার (৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে গণপরিবহনের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে মানুষ। অফিস শেষে অনেকেই বাসের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে দেখা যায়। সড়কে অল্পসংখ্যক বাস চলাচল করলেও ব্যক্তিগত গাড়ি ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার আধিক্য চোখে পড়েছে।

শনিবার রাজধানীর বাড্ডা, গুলশান, ভাটারা এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়।

মেরুল বাড্ডা এলাকায় এক ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকেও বাস পাননি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী সাজেদুল ইসলাম। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বাসের আশা ছেড়ে দিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশা খুঁজতে থাকেন তিনি।

এ সময় জাগো নিউজকে তিনি বলেন, প্রতিবারই তেলের দাম বাড়লে জনগণকে জিম্মি করে ভাড়া বাড়িয়ে নেয় পরিবহন মালিকরা। আজও তাই হলো, বাস ইচ্ছে করেই বন্ধ রেখেছে। নতুন ভাড়ার সিদ্ধান্ত হলে তারা বাস নামাবে।

jagonews24

তিনি আরও বলেন, মিরপুর এক নম্বর যাবো, এক ঘণ্টা ধরে কোনো বাস আসছে না। সিএনজিচালিত অটোরিকশাও দ্বিগুণ ভাড়া চাইছে।

বাসের চালক ও সহকারীরা জানিয়েছেন, নতুন ভাড়ার ঘোষণা না আসা পর্যন্ত মালিকরা বাস নামাবেন না। কেননা বেশি দামে তারা আজ তেল কিনেছেন। এমন অবস্থায় অপেক্ষা করতে চান তারা।

বাড়তি ভাড়া আদায় করতে পরিবহন মালিকরা সড়কে নৈরাজ্য করছে জানিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো ফলে জনজীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে এসেছে।
পরিবহন ব্যয় দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সাধারণ মানুষের সামর্থ্যরে বাইরে চলে যাবে। এরই মধ্যে পরিবহন সেক্টরে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে সাধারণত তেলের দাম যে পরিমাণ বাড়ে তার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি বাড়ে বাস ও অন্যান্য গণপরিবহন ভাড়া। পণ্য পরিবহন ভাড়াও ইচ্ছেমতো বাড়িয়ে দেয় ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান মালিকেরা।

এসএম/আরএডি/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]