সীতাকুণ্ডে স্ক্র্যাপ জাহাজে ডাকাতি, গ্রেফতার ৩ জনের রিমান্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৭:২৪ পিএম, ১১ আগস্ট ২০২২
ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে স্ক্র্যাপ জাহাজে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার তিন আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) দুপুরে চট্টগ্রাম সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত-১ এর বিচারক কৌশিক আহম্মেদ খোন্দকার রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন।

রিমান্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- মোহাম্মদ রাসেল (২৮), মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন (৩২) ও জয়নাল আবেদিন সুমন (২৩)। তাদের মধ্যে রাসেলকে তিনদিনের ও অন্য দুজনকে দুদিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সীতাকুণ্ড মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ শামসুদ্দিন জানান, চলতি বছরের ১৬ এপ্রিল রাতে সীতাকুণ্ডের সিমনি শিপ রিসাইক্লিং ইন্ডাস্ট্রিজ ইয়ার্ডে রাখা এমটি এশিয়ান গ্লোরি নামের স্ক্র্যাপ জাহাজে হামলা চালায় একদল ডাকাত।

এ সময় জাহাজে থাকা লোকজনের ওপর হামলা চালিয়ে মূল্যবান জিনিস নিয়ে পালিয়ে যান ডাকাতরা। এ ঘটনায় তদন্তে নেমে ওই তিন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে হাজির করানো হলে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রত্যেকের সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হয়।

বাদীপক্ষের আইনজীবী জিয়া হাবীব আহসান বলেন, ওই রাতে বিকাশ দাস, রাসেল ও দিলীপ দাসসহ অজ্ঞাতনামা ১০-১২ জনের সংঘবদ্ধ ডাকাত দল জাহাজের তিন-চার জায়গায় কোটা লাগিয়ে রশি নিক্ষেপ করে জাহাজে উপরে উঠে পড়ে। এ সময় তাদের কাছে ধারালো অস্ত্র ছিল।

ডাকাতদলের অতর্কিত আক্রমণে জাহাজের ইনচার্জ ধর্ম জয়সহ প্রহরীরা গুরুতর আহত হন। পরে ডাকাতদলের সদস্যরা জাহাজের স্টোররুমের তালা ভেঙে ও জাহাজের বিভিন্ন জায়গায় থাকা পিতলের বুস, গেট বাল্ব, পাম্প মেশিন, ফ্লান্স, এস. এস. ও তামাসহ আনুমানিক সাত মেট্রিক টন মালামাল অন্য ট্রলারে করে লুট করে নিয়ে যান।

জিয়া হাবীব আহসান আরও বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে গড়িমসি করে। পরবর্তীকালে সিমনি শিপ রিসাইক্লিং ইন্ডাস্ট্রিজ শিপ ইয়ার্ড কর্তৃপক্ষ বাদী হয়ে আদালতে মামলা করে।

ইকবাল হোসেন/এসএএইচ/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।