কাবাডি দলের ছাত্রীদের ‘মারধর’, মাথা ন্যাড়া করে প্রতিবাদ শিক্ষিকার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৫ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

# ঘটনা তদন্তে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের তিন সদস্যের কমিটি গঠন
চুলে বেণি করা নিয়ে কাবাডি দলের ছাত্রীদের মারধর করায় নিজের মাথা ন্যাড়া করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন এক সহকারী শিক্ষিকা। চট্টগ্রাম নগরের ফিরিঙ্গি বাজার এয়াকুব আলী দোভাষ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এ স্কুলের কাবাডি দলের কোচ ও শারীরিক শিক্ষার শিক্ষক জাহিদা পারভীন বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাতে নিজের ফেসবুক পেজে ন্যাড়া মাথার ছবি দিলে বিষয়টি আলোচনায় আসে। এরপর চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ঘটনাটি তদন্তে তিন সদস্যর কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিপা চৌধুরী ও থানা পর্যায়ে স্কুল ক্রীড়ার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে তাকে সহযোগিতা না করার অভিযোগ করেন তিনি। চুলে ফ্রেঞ্চ বেণি করায় বিদ্যালয়ের কাবাডি দলের কয়েকজন ছাত্রীকে ৭ সেপ্টেম্বর প্রধান শিক্ষক মারধর করেন বলেও অভিযোগ জাহিদা পারভীনের।

জানা গেছে— ৪৯তম জাতীয় গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার জন্য এয়াকুব আলী দোভাষ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে ১২ জন ছাত্রী নিয়ে গঠিত কাবাডি দলকে মাসখানেকেরও বেশি সময় ধরে প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছিলেন জাহিদা পারভীন।

শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকালে জাহিদা পারভীন সাংবাদিকদের বলেন, গত ৮ সেপ্টেম্বর প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার আগের দিন ৭ সেপ্টেম্বর প্রধান শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছবি তুলতে গেলে ফ্রেঞ্চ বেণি করা নিয়ে কয়েকজন ছাত্রীকে বকাঝকা ও মারধর করেন। এতে ক্ষোভ জানিয়ে ১৩ সেপ্টেম্বর নিজের মাথা ন্যাড়া করে প্রতিবাদ জানান। অভিযোগ করে জাহিদা পারভীন বলেন, চুল ন্যাড়া করার পর স্কুল কর্তৃপক্ষের লোকজন তাকে বারবার হুমকি দিয়ে আসছে। বৃহস্পতিবারও স্কুলে গেলে তাকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

তবে, জাহিদার দাবি অস্বীকার করে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা নিপা চৌধুরী বলেন, বেণি করা নিয়ে কোনো ছাত্রীকে মারধর কিংবা বকাঝকা করা হয়নি। কাবাডি খেলতে যাওয়ার আগের দিনও তাদের সঙ্গে ছবি তুলেছি। তবে, শিক্ষিকা জাহিদা নিজেই পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।

অন্যদিকে, স্কুল শিক্ষিকার চুল ন্যাড়া করে প্রতিবাদ জানানোর বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আসার পর সমালোচনা তৈরি হয়। ঘটনার বিষয়টি তদন্ত করতে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমান বলেন, এয়াকুব আলী দোভাষ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের ঘটনায় তিন সদস্যর কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে দ্রুত সময়ের মধে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। এ ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

ইকবাল হোসেন/এমএএইচ/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।