নানা আয়োজনে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:১৪ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

নানা আয়োজনে দেশে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর খামার বাড়িতে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও সেমিনারের আয়োজন করা হয়। সেমিনারে জলাতঙ্ক রোগ প্রতিরোধ ও সচেতনতা বৃদ্ধির ওপর বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। এবারে দিবসটির মূল প্রতিপাদ্য ‘জলাতঙ্ক: মৃত্যু আর নয়, সবার সঙ্গে সমন্বয়’

কর্মসূচির শুরুতে সকাল ৯ টায় জলাতঙ্ক সচেতনতা বিষয়ক একটি শোভাযাত্রা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে শুরু হয়ে খামারবাড়ি মোড় ঘুরে পুনরায় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে এসে শেষ হয়।

এসময় প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ তথ্যদপ্তর, প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট ও বাংলাদেশ ভেটেরিনারি কাউন্সিলসহ বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারী জলাতঙ্কের ওপর বিভিন্ন সচেতনামূলক লেখাযুক্ত প্ল্যাকার্ড, পোস্টার ও ব্যানার হাতে নিয়ে শোভাযাত্রা প্রদক্ষিণ করেন। প্রাণিসম্পদ অধিপ্তরের মহাপরিচালক ডা. মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহজাদা শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন।

এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ তথ্যদপ্তর দেশের প্রতিটি জেলা, উপজেলায় জলাতঙ্কের ওপর সচেতনতামূলক প্রচারপত্র, পোস্টার ও ব্যানার বিতরণ করে।

সেমিনারে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জুবাইদুর রহমান বলেন, গত ৩০ বছরে নতুন ২০ রোগের আবির্ভাব হয়েছে। এদের একটি জলাতঙ্ক রোগ। এ রোগ প্রতিরোধে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ২০২১ সালে ২২ হাজার কুকুরকে টিকা দেওয়া হয়। এছাড়াও কুকুর সরাসরি নিধন না করে স্ট্রিট ডগের অভয়ারণ্য নির্মাণের লক্ষ্যে ২ বিঘা জমি বরাদ্দ হয়েছে।

জলাতঙ্ক রোগ ও তা নিরাময়ে করণীয় সম্পর্কে বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রাণিসম্পদ অধিপ্তরের পরিচালক ডা. মো. আবু সুফিয়ান, ডা. মো. আজিজুল ইসলাম ও ডা.সুকেশ চন্দ্র বাদয়সহ অনেকে।

অনুষ্ঠানে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. মো.এমদাদুল হক তালুকদারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন প্রাণিসম্পদ অধিপ্তরের মহাপরিচালক ডা. মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহজাদা।

অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত বাংলাদেশে ২২ লাখ জলাতঙ্ক রোগের টিকা দেওয়া হয়েছে। আগের তুলনায় টিকা দেওয়া বেড়েছে। আমরা যদি সমন্বিতভাবে কাজ করি তাহলে ২০৩০ সালের আগেই জলাতঙ্কমুক্ত বাংলাদেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবো।

সেমিনারে প্রফেসর ডা. নীতিশ চন্দ্র দেবনাথ বলেন, সরকারের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট সব সংস্থা যদি মন থেকে জলাতঙ্ক নিরাময়ে কাজ করে তাহলে ২০৩০ সালের মধ্যে এ রোগ নির্মূল করা সম্ভব।

ডা. মো. শাহিনুর আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ভেটেরিনারি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. এস এম নজরুল ইসলাম, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ তথ্যদপ্তরের তথ্য কর্মকর্তা ডা. মো. এনামুল কবীরসহ অনেকে।

আইএইচআর/এমআইএইচএস/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।