নৌপরিবহনের প্রয়োজনীয়তা দিন দিন বাড়ছে: আইনমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৪ পিএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
সেমিনারে বক্তব্য দেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জনসংখ্যা এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশের নৌপরিবহনের প্রয়োজনীয়তা দিন দিন বাড়ছে। ভবিষ্যতেও এই প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন, জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে খাদ্য, শক্তি এবং পানির চাহিদা বাড়ছে, যা নৌপরিবহন, নবায়নযোগ্য শক্তি এবং সুনীল অর্থনীতির প্রয়োজনীয়তা আরও বাড়িয়ে তুলবে।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে আন্তর্জাতিক নৌ দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। নৌ-বাণিজ্য খাতের বিশিষ্ট পেশাজীবী ও অংশীজনদের নিয়ে নৌপরিবহন অধিদপ্তর এ সেমিনারের আয়োজন করে।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আনিসুল হক বলেন, পণ্য পরিবহনের জন্য সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য এবং সাশ্রয়ী পদ্ধতি হলো শিপিং। কেননা শিপিং আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সহজ করে। দেশের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধিতে বিরাট ভূমিকা রাখে। ফলে বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের প্রায় ৯০ শতাংশ নৌপথে পরিবহন করা হয়।

আইনমন্ত্রী বলেন, নৌ দিবসের এবারের প্রতিপাদ্যে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে একটি টেকসই পরিবেশবান্ধব নৌ-বাণিজ্যের প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। প্রতিপাদ্যটিতে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বিশেষ করে এসডিজি ১৩ ও ১৪ তথা জলবায়ু, মহাসাগর, সমুদ্র এবং সামুদ্রিক সম্পদের টেকসই ব্যবহারে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও এসডিজি ৯ তথা শিল্প, উদ্ভাবন এবং অবকাঠামো উন্নয়ন এবং এসডিজি ১৭ তথা লক্ষ্য অর্জনে অংশীদারত্ব এবং বাস্তবায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

নতুন ও পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তির ব্যবহারের প্রতি গুরুত্বারোপ করে আইনমন্ত্রী বলেন, যত দ্রুত আমরা সঠিকভাবে পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে পারবো, আমাদের মেরিটাইম সেক্টর তত ভালো হবে। আর্থ-সামাজিকভাবে টেকসই হবে এবং আমাদের এসডিজির লক্ষ্যগুলি অর্জন হবে এবং এর দ্বারা জনগণ উপকৃত হবে। অন্যথায় আমরা বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় অন্যান্য দেশের তুলনায় পিছিয়ে পড়বো।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত ১৪ বছরে বাংলাদেশ প্রতিটি সেক্টরে অসামান্য উন্নয়ন করেছে। মেরিটাইম সেক্টরও এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই। দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সঙ্গে রপ্তানি ও আমদানিও ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরের প্রবৃদ্ধি জাতীয় প্রবৃদ্ধির প্রায় দ্বিগুণ।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কামাল। এতে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম, বুয়েটের অধ্যাপক মীর তারেক আলী, নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর মো. নিজামুল হক, ব্যুরো ভেরিটাস (বাংলাদেশ) কান্ট্রি ম্যানেজার মো. হারুনুর রশিদ প্রমুখ বক্তব্য দেন। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বুয়েটের পেট্রোলিয়াম অ্যান্ড মিনারেল রিসোর্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ তামিম।

সেমিনারে বিষয়ভিত্তিক কারিগরি প্রবন্ধ উপস্থাপনার পাশাপাশি মেরিটাইমের পাঁচ খাতে বিশেষ অবদানের জন্য পাঁচ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

এফএইচ/কেএসআর/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।