আজ থেকে অনলাইনে দিতে হবে ই-নামজারির সব ফি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:৫০ এএম, ০১ অক্টোবর ২০২২

ই-নামজারির কোনো ফি আজ (১ অক্টোবর) থেকে আর নগদে পরিশোধ করা যাবে না। রেকর্ড সংশোধন এবং খতিয়ান সরবরাহ ফিসহ পুরো এক হাজার ১০০ টাকা অনলাইনে পরিশোধ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

ভূমি মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগেও এ বিষয়ে একটি পরিপত্র জারি করেছে মন্ত্রণালয়।

মানুষের ভোগান্তি লাঘব এবং জটিলতা এড়াতে ই-নামজারি আবেদন ও নোটিশ ফি’র মতো রেকর্ড সংশোধন ও খতিয়ান সরবরাহ ফি অনলাইনে নেওয়ার পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। তাই শনিবার (১ অক্টোবর) থেকে রেকর্ড সংশোধন ও খতিয়ান সরবরাহ ফি আর ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে (নগদ টাকা) দেওয়া যাবে না।

ই-নামজারি আবেদন ফি (কোর্ট ফি) ২০ টাকা ও নোটিশ ফি (নোটিশ জারি ফি) ৫০ টাকা আবেদন করার সময়ই অনলাইনে দেওয়া হতো। তবে এতদিন রেকর্ড সংশোধন ফি এক হাজার টাকা ও খতিয়ান সরবরাহ ফি ১০০ টাকা অনলাইনে ও নগদে দু’ভাবেই নেওয়া হতো। শনিবার থেকে এ দুটি ফিও আর নগদে নেওয়া হবে না। চার ধরনের ফি প্রদানে নামজারির জন্য মোট প্রকৃত খরচ এক হাজার ১৭০ টাকা।

গত ৬ সেপ্টেম্বর ভূমি সচিবের সই করা একটি পরিপত্রে বলা হয়, ভূমি মন্ত্রণালয়ের গত ১৪ মার্চের পরিপত্রে ই-নামজারি আবেদন ও নোটিশ ফি ১ এপ্রিল থেকে সম্পূর্ণভাবে অনলাইনে জমা প্রদানের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তবে নামজারি অনুমোদনের পর রেকর্ড সংশোধন বাবদ এক হাজার টাকা ও খতিয়ান সরবরাহ বাবদ ১০০ টাকা মোট এক হাজার ১০০ টাকা অনলাইনে ও সরাসরি ক্যাশের মাধ্যমে নেওয়ার কারণে জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে।

এ জটিলতা নিরসনে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের পর রেকর্ড সংশোধন এবং খতিয়ান সরবরাহ ফি বাবদ মোট এক হাজার ১০০ টাকা শুধুমাত্র অনলাইনে নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হলো বলে পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়।

পরিপত্রে আরও বলা হয়, ডিসিআর ও খতিয়ানের কোনো ত্রুটি সংশোধনের জন্য কোনো ফি প্রযোজ্য হবে না। একইভাবে, ভূমি মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী তথ্য/চাওয়া দলিলাদি না পাওয়ার জন্য না-মঞ্জুরকরা কোনো নামজারি আবেদন পুনরায় চালু হলে উক্ত আবেদন মঞ্জুরের পর রেকর্ড সংশোধন ও খতিয়ান সরবরাহ ফি বাবদ মোট এক হাজার ১০০ টাকা প্রযোজ্য হবে।

আরএমএম/জেএস/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।