‘চরম বৈষম্যের শিকার এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৩৫ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০২২

দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় শতকরা ৯৭ ভাগ সেবা দিয়ে থাকে এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। তবে দেশের সাড়ে পাঁচ লক্ষাধিক এমপিওভুক্ত শিক্ষক পেশাগত বৈষম্যের শিকার। কারণ তাদের কোনো পদোন্নতির ব্যবস্থা নেই, বাড়িভাড়া নির্দিষ্ট এক হাজার টাকা, চিকিৎসা ভাতা ৫০০ টাকা এবং উৎসব ভাতা মাত্র ২৫ শতাংশ।

বুধবার (৫ অক্টোবর) বিশ্ব শিক্ষক দিবস-২০২২ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর শিক্ষাদর্শন ও এমপিওভুক্ত শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বক্তারা। বাংলাদেশ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারী ফোরাম (বাবেশিকফো) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এসময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।

এ সময় বক্তারা ৫ অক্টোবর শিক্ষকদের জন্য ছুটি ঘোষণার দাবি জানান। তারা বলেন, শিক্ষক দিবস কখনো যথাযথ মর্যাদায় পালন হচ্ছে না।

বাবেশিকফোর মহাপরিচালক আব্দুল খালেক বলেন, এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা দেশের শিক্ষাক্ষেত্রে ৯৭ শতাংশ সেবা দিয়ে থাকেন। কিন্তু এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা আজ অমর্যাদা, লাঞ্ছনা-বঞ্চনা আর বৈষম্যর বেড়াজালে আবদ্ধ। শিক্ষকদের প্রতি এমন বৈষম্য রেখে তাদের কাছ থেকে মানসম্মত শিক্ষার প্রত্যাশা করা অমূলক। শিক্ষার মান উন্নয়নে শিক্ষকদের আকর্ষণীয় বেতন-ভাতা, সম্মান, মর্যাদাশালী ও সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করা একান্ত জরুরি। গুনগত মানের মেধাবী শিক্ষকরাই পারেন যুগের চাহিদা অনুযায়ী মেধাবী ও দক্ষ জনশক্তি উপহার দিতে। বস্তুত একজন শিক্ষার্থীর জীবনে যোগ্য শিক্ষকের প্রভাব খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, দেশের বিদ্যমান শিক্ষা ব্যবস্থার মান নিম্নমুখী ও আশঙ্কাজনক। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কল্যাণে বিশ্ব যখন উন্নতির সর্বোচ্চ শিখরে অবস্থান করছে, তখন আমরা শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নের পথে খুড়িয়ে খুড়িয়ে এগুচ্ছি। দেশের বিশৃঙ্খলা শিক্ষা ব্যবস্থার মান উন্নয়নের বিষয়টি এখন সর্বমহলে আলোচিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞদের মতে, দক্ষিণ এশিয়ায় মধ্যে বাংলাদেশের শিক্ষার মান সর্বনিম্ন।

বাবেশিকফোর সভাপতি সাইদুল হাসান সেলিম বলেন, অবিলম্বে জাতীয় শিক্ষানীতি ও শিক্ষা আইন প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করে শিক্ষকদের অপ্রাপ্তি, বঞ্চনা, বৈষম্য দূর করার জোর দাবি জানাচ্ছি। এখনই সময় এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের। এতে শুধুমাত্র শিক্ষকরাই যে উপকৃত হবেন এমনটা নয়, এর সর্বোচ্চ সুবিধা ভোগ করবে প্রান্তিক হতদরিদ্র অসচ্ছল জনগোষ্ঠীর সন্তানরা। এতে তারা স্বল্প খরচে সরকারি প্রতিষ্ঠানে গুণগত শিক্ষা লাভের সুযোগ পাবে।

এনএইচ/জেএস/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।