বিআইএফসির সাবেক চেয়ারম্যানসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৫৩ পিএম, ০১ ডিসেম্বর ২০২২

বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফাইন্যান্সিয়াল কোম্পানি লিমিটেডের (বিআইএফসি) সাবেক চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নানসহ ১২ জনের বিরুদ্ধ মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে দুদক সমন্বিত কার্যালয় ঢাকা-১ এ মামলাটি দায়ের করা হয়। মামলা দায়েরের বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান দুদক সচিব মো. মাহবুব হোসেন।

মাহবুব হোসেন বলেন, বিআইএফসির চেয়ারম্যান, পরিচালক ও কর্মকর্তারা পরস্পর যোগসাজসে একে অন্যের সহায়তায় প্রতারণা করে মেসার্স টেলিকম সার্ভিস এন্টারপ্রাইজের মালিক রিজিয়া সুলতানার নামে নিরাপত্তা জামানত ও মর্টগেজ ছাড়াই ১৬ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ দেখান। যা সুদ ও আসলসহ গ্রাহকের কাছে পাওনা ৯ কোটি ৭৭ লাখ ৯৪ হাজার ৮৯২ টাকা স্থানান্তর ও রূপান্তরের মাধ্যমে আত্মসাৎ করেন।

তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, কর্মকর্তারা ও ঋণগ্রহীতা পরস্পর যোগসাজসে একে অন্যের সহায়তায় প্রতারণা করে আত্মসাত করার দায়ে তাদের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/১০৯ ধারা, ১৯৪৭ সনের দুর্নীতির ৫(২) মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ এর ৪(২) ধারায় মামলা করে দুদক।

আরও পড়ুন >> মেজর মান্নানসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন

মামলার এজহারে বলা হয়, মেসার্স টেলিকম সার্ভিস এন্টারপ্রাইজের মালিক রিজিয়া সুলতানার স্বাক্ষরে ২০০৯ থেকে ২০১১সাল পর্যন্ত সময়ে বিআইএফসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর ৬০ দিন মেয়াদে ব্যবসায়িক প্রয়োজন মেটানোর জন্য ১৬ কোটি টাকা ঋণের জন্য আবেদন করেন। ঋণের সিকিউরিটি হিসেবে প্রত্যেকটি ঋণের বিপরীতে ৬০ পোস্টডেটেড একটি করে চেক জমা রাখার কথা বলা হলেও প্রকৃতপক্ষে নিরাপত্তা জামানত হিসেবে চেক কিংবা অন্য কোনো সম্পদ মর্টগেজ রাখেননি।

এর আগে গত ১৪ নভেম্বর বিআইএফসি থেকে একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে প্রায় ৮৩ কোটি ৮৯ লাখ ৯ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির সাবেক চেয়ারম্যান ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নানসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দেয় দুদক।

এসএম/এমএএইচ/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।