‘জয় বাংলা’ বলে তাপসের গাড়িবহরে হামলা: যা জানালো দক্ষিণ সিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১৮ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২
ফাইল ছবি

পুরান ঢাকার বকশিবাজারে খেলার মাঠ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের গাড়িবহরে হামলার ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়েছে ডিএসসিসি। বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) বিকেলে ডিএসসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাছের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ ব্যাখা দেওয়া হয়।

‘ঢাকাবাসীর কল্যাণে খেলার মাঠের দখলমুক্তি, উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণে ডিএসসিসির অবস্থান অবহিতকরণ’ শীর্ষক এ ব্যাখ্যায় বলা হয়, ‘স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন, ২০০৯ এর তৃতীয় তফসিলের ধারা ২৪.৩ ও ২৪.৪ অনুযায়ী করপোরেশনের আওতাধীন এলাকায় সর্বসাধারণের সুবিধা ও চিত্ত-বিনোদনের জন্য উদ্যান নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ এবং উদ্যান উন্নয়নের জন্য উন্নয়ন প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করার এখতিয়ার সিটি করপোরেশন সংরক্ষণ করে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকে সে আইনের যথাযথ ও কার্যকর প্রয়োগে দৃঢ় সংকল্প এবং সে লক্ষ্যে দৃঢ় প্রত্যয়ে এগিয়ে চলেছেন।

সুতরাং সরকারি-বেসরকারি, প্রাতিষ্ঠানিক-অপ্রাতিষ্ঠানিক, ব্যক্তি বা স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী বা দুষ্টু চক্র কর্তৃক খেলার মাঠ দখল করা বা দখলে রাখার পাঁয়তারা করার বিরুদ্ধে নগরবাসীর কল্যাণে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন সুসংহত ও বলিষ্ঠ ভূমিকা গ্রহণ করবে। জনস্বার্থে ও জনস্বাস্থ্য নিশ্চিত করার প্রয়াসে সব খেলার মাঠ দখলমুক্ত করার পাশাপাশি তা রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়ন অব্যাহত থাকবে এবং সেসব মাঠ জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এ ধারাবাহিকতায় করপোরেশনের বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের নির্দেশনার আলোকে দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত ও বেদখল অবস্থায় পড়ে থাকা বকশীবাজারের খেলার মাঠটি দখলমুক্ত করা হয় এবং তৎপরবর্তী সে মাঠের উন্নয়ন সাধন ও খেলার পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীসহ জনসাধারণের অবাধ বিচরণ ও খেলাধুলা করার অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সে মাঠটিকে বকশীবাজার কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ হিসেবে নামকরণ করা হয় এবং গত ৭ ডিসেম্বর দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বকশীবাজার কেন্দ্রীয় খেলার মাঠের উদ্বোধন করেন। ফলে গত ৭ ডিসেম্বরে থেকে বকশীবাজার কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে অত্র এলাকার জনগণসহ সর্বসাধারণের প্রবেশাধিকার ও খেলাধুলায় অংশ নেওয়ার অধিকার সংরক্ষণ করা হয়েছে।

বকশীবাজার কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে জনসাধারণের প্রবেশ ও খেলাধুলায় অংশগ্রহণে কোনো ব্যক্তি বিশেষ ও গোষ্ঠী কর্তৃক বাধাপ্রাপ্ত হলে তা ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে যথাসময়ে অবহিত করার অনুরোধ জানিয়েছে সংস্থাটি। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের টেলিফোন নম্বরে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে অনুরোধ জানিয়েছে তারা।

ডিএসসিসি জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাছের স্বাক্ষরিত এ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ঢাকা শহরের জন্য সমন্বিত মহাপরিকল্পনার আলোকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস প্রতিটি ওয়ার্ডে ন্যূনতম একটি করে খেলার মাঠ বা উদ্যান সৃষ্টিতে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন। জনকল্যাণে নিবেদিত এ ধরনের কার্যক্রমে কোনো ধরনের বাঁধা ও প্রতিবন্ধকতা প্রদান, অরাজকতা সৃষ্টি বরদাশত করা হবে না এবং এ কাজে সম্পৃক্ত সব দুষ্কৃতকারীকে বলিষ্ঠভাবে প্রতিরোধ করা হবে।

এ নগরের সব কার্যক্রম নগরবাসীর কল্যাণেই পরিচালনা করা হচ্ছে এবং তা অব্যাহত রাখা হবে। ঢাকাবাসীর জন্য একটি ঐতিহ্যের, সুন্দর, সচল, সুশাসিত ও উন্নত ঢাকা বিনির্মাণে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বদ্ধপরিকর এবং অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জনে দৃঢ় সংকল্প।

গতকাল বুধবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুরে বকশীবাজারের এ মাঠ উদ্বোধন করেন ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। ডিএসসিসি এ মাঠটির নাম দিয়েছে বকশীবাজার কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ। কিন্তু ঢাকা আলিয়া মাদরাসার শিক্ষার্থীদের দাবি, এটি ঢাকা আলিয়ার মাঠ। মাদরাসার নামেই মাঠের নামকরণ করতে হবে। ডিএসসিসি তাদের কথার গুরুত্ব না দিয়ে গতকাল মাঠটি উদ্বোধন করে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষ পর্যায়ে জয় বাংলা বলে শেখ ফজলে নূর তাপস এবং তার সঙ্গে থাকা লোকজনকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুটতে থাকে ঢাকা আলিয়ার শিক্ষার্থীরা। তখন দ্রুত গাড়ি বহর নিয়ে বকশীবাজার ত্যাগ করেন মেয়র। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশে লাঠিপেটা, টিয়ারশেল নিক্ষপ করে।

এমএমএ/এমআইএইচএস/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।