সাগর-রুনির ল্যাপটপ খুঁজছে র‌্যাব


প্রকাশিত: ১২:১২ পিএম, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৪

নিহত সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির ব্যবহৃত ল্যাপটপের খোঁজ করছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (‌র‌্যাব)। সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনির হত্যার তিন বছর পর এই উদ্যোগ নিলো র‌্যাব।

গত ২৫ নভেম্বর বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) প্রকৌশলী ও অপারেশন বিভাগের কাছে সাগর-রুনির ল্যাপটপ খুঁজে বের করার জন্য একটি চিঠি পাঠানো পাঠিয়েছে। চিঠিতে ল্যাপটপের আইপি এড্রেস এবং মাদারবোর্ডের ম্যাক নম্বর উল্লেখ করা হয়েছে। বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা, র‌্যাবের তদন্ত ও ফরেনসিক বিভাগের সহকারী পরিচালক ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ওয়ারেশ আলী মিঞা।

তিনি জাগোনিউজকে জানান, “মামলার তদন্তের অগ্রগতির স্বার্থে সাংবাদিক দম্পতির ল্যাপটপ খুঁজে বের করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আমরা আশা করছি ল্যাপটপ পাওয়া গেলে নতুন তথ্য পাওয়া যাবে।”

তবে কী ধরণের তথ্য পাওয়ার সম্ভাবনা থেকে র‌্যাব এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সে সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন তিনি বলেন, তদন্তের স্বার্থে এ ব্যাপারে কিছু বলা যাবে না।

ইতোমধ্যে বিটিআরসি’র প্রকৌশল বিভাগ ও অপারেশনস বিভাগ ল্যাপটপ খুজতে কাজ শুরু করেছে বলেও জানান তিনি।

তবে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিটিআরসির প্রকৌশল ও অপারেশনস বিভাগের এক শীর্ষ কর্মকর্তা জানান, র‌্যাব গত মাসে আবেদনপত্রটি পাঠিয়েছেন। ল্যাপটপ উদ্ধারের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। খুব শিগরীরি উদ্যোগ নেওয়া হবে।

উল্লেখ, ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর রাজাবাজারে নিজ বাসায় নৃশংসভাবে খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারোয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। ঘটনার পর রুনির ভাই নওশের আলম রোমান শের-ই-বাংলানগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ তদন্ত কাজ শুরু করার কিছুদিন পরে মামলার তদন্ত ডিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরে ডিবি’র তদন্তেও মামলার কোনো অগ্রগতি না হওয়ায় উচ্চ আদালতের নির্দেশে র‌্যাব এই চাঞ্চল্যকর মামলার তদন্ত কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

তদন্তের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে তদন্ত কর্মকর্তা ওয়ারেশ আলী জানান, তদন্ত মধ্যবর্তী অবস্থায় রয়েছে। কবে তদন্ত শেষ হবে জানতে চাইলে তিনি নির্দিষ্ট সময়সীমা জানাতে পারেননি তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :