ছিনতাই ডাকাতিতে পুলিশ!

সম্পাদকীয়
সম্পাদকীয় সম্পাদকীয়
প্রকাশিত: ০৯:৫৪ এএম, ০৫ এপ্রিল ২০১৯

ইংরেজি POLICE শব্দের বিশ্লেষণ করলে দাঁড়ায়- P – Polite, O – Obedient, L – Loyel, I – Inteligent, C – Courageous, E – Efficient। এই বহুগুণে গুণান্বিত মানবিক পুলিশই মানুষ জন দেখতে চায়। কিন্তু দুঃখজনক বাস্তবতা হচ্ছে মাঝেমধ্যেই এই প্রত্যাশার ব্যত্যয় ঘটে। অনেক পুলিশ এমনসব অপকর্মের সাথে জড়িত হন যা তাদের পেশার মান মর্যাদার সঙ্গে কোনোভাবেই সঙ্গতিপূর্ণ নয়।

পুলিশের বিরুদ্ধে হয়রানি, চাঁদাবাজির অভিযোগ নতুন নয়। অবস্থা এমন হয়েছে যে তা বেড়েই চলেছে। এরই প্রমাণ আবার দেখা গেল জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলার বটতলী এলাকায় ৮ লাখ টাকা ছিনতাইকালে জেলার পাঁচবিবি থানার পুলিশ কনস্টেবল মুহিদুল ইসলামকে (৪০) আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা। বুধবার সন্ধ্যায় ক্ষেতলাল উপজেলার বটতলী ব্রিজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

অন্যদিকে পরিদর্শক পদমর্যাদার একজন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ডাকাতি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় ডাকাতির মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তা এখন কারাগারে আছেন। তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানা-পুলিশ ঢাকার আদালতকে জানিয়েছে, ডাকাতি মামলার এক নম্বর আসামি হলেন হুমায়ুন কবির (৩৭)। তিনি পুলিশের অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের একজন পরিদর্শক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এ ধরনের অভিযোগ গুরুতর। কোনো অবস্থায়ই যেন অভিযুক্তরা পার পেয়ে না যায় সেটি নিশ্চিত করতে হবে।

পুলিশের কাজ হচ্ছে জননিরাপত্তা নিশ্চিত করা। মানুষের জানমাল রক্ষায় তারা সর্বাত্মক চেষ্টা চালাবে এটিই কাম্য। কিন্তু দেখা গেল লোভের কারণে বিপথগামী হচ্ছে তারা। এরচেয়ে জঘন্য অপরাধ আর কি হতে পারে। আর সেটি যদি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মত কোনো সুশৃঙ্খল বাহিনী করে তাহলে তা আরো আতঙ্কের ব্যাপার।
দিন দিন পুলিশের কর্মপরিধি বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে পুলিশের সক্ষমতাও। একটি স্বাধীন দেশের পুলিশ বাহিনী জনবান্ধব হবে-এটি একটি সাধারণ প্রত্যাশা। সেখানে কিছুসংখ্যক পুলিশ সদস্যের অর্থলিপ্সা ও কুকর্মের কারণে গোটা পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। এটি মেনে নেওয়া যায় না। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তের পাশাপাশি বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে নিতে হবে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা।

এইচআর/এমকেএইচ

কিছুসংখ্যক পুলিশ সদস্যের অর্থলিপ্সা ও কুকর্মের কারণে গোটা পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। এটি মেনে নেওয়া যায় না। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তের পাশাপাশি বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :