আওয়ামী লীগের ৭৫ বছর

সংগ্রাম বিজয় ও রূপান্তরের উত্তরাধিকার

ড. প্রণব কুমার পান্ডে
ড. প্রণব কুমার পান্ডে ড. প্রণব কুমার পান্ডে
প্রকাশিত: ০৯:৪৪ এএম, ২৩ জুন ২০২৪

 

২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যখন ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করছে, তখন আমরা একটি সমৃদ্ধ ঐতিহ্যের কথা বিবেচনা করছি যা মৌলিকভাবে একটি দেশের ভাগ্য নির্ধারণ করেছে। শেখ মুজিবুর রহমানের নিরলস নেতৃত্বে স্বাধীনতার লড়াইয়ের নেতৃত্ব দেওয়া থেকে শুরু করে জাতি গঠন ও উন্নয়নের কঠিন পথ নিয়ে আলোচনা করা পর্যন্ত আওয়ামী লীগের ইতিহাস বাংলাদেশের জনগণের প্রতি বিশ্বাস, দূরদর্শিতা ও অটল আনুগত্যের প্রমাণ।

আওয়ামী লীগ ১৯৪৯ সালে এমন এক সময়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যখন পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণে থাকা বাঙালিদের আশা আকাঙ্ক্ষা দমন করা হচ্ছিল। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ক্যারিশম্যাটিক নেতৃত্বে এই দলটিকে পূর্ব পাকিস্তানের অধিকার ও স্বায়ত্তশাসনের অর্জনের জন্য একটি শক্তিতে পরিণত করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু তাঁর ঐতিহাসিক ছয় দফা আন্দোলনের মাধ্যমে সম্পূর্ণ স্বাধীনতার একটি রূপরেখা প্রদান করেছিলেন, যার মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ঝড়ো ঘটনাগুলি সংঘটিত হয়েছিল।

শুধু আওয়ামী লীগের জন্য নয়, সমগ্র দেশের জন্য এই স্বাধীনতা যুদ্ধ এক সন্ধিক্ষণ হিসেবে চিহ্নিত হয়ে রয়েছে। প্রথম পর্যায়ের লড়াইয়ে নেতৃত্ব দিয়ে বঙ্গবন্ধু লক্ষ লক্ষ মানুষকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন যুদ্ধ ও আত্মত্যাগের কঠিন মাসগুলিতে আওয়ামী লীগের সাথে থাকবার জন্য। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ নামক একটি নতুন রাষ্ট্রের জন্ম নেয় যার মাধ্যমে এই অঞ্চলের মানুষের আশা ও সম্ভাবনার নতুন সূর্য উদিত হয়েছিল।

স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধের কারণে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত একটি দেশকে পুনর্নির্মাণের বিশাল কাজ শুরু করেছিলেন। সোনার বাংলা সম্পর্কে তাঁর দৃষ্টিভঙ্গি একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং সমৃদ্ধ দেশের আদর্শকে মূর্ত করে তুলেছিল। পরিকাঠামো পুনর্নির্মাণ, অর্থনীতির পুনরুজ্জীবন এবং গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান নির্মাণের উপর জোর দিয়ে স্বাধীনতার প্রথম বছরগুলি দেশের উল্লেখযোগ্য উন্নয়নের কাজ তিনি শুরু করেছিলেন।

কিন্তু, তাঁর সেই কাজ শেষ করতে দেওয়া হয় নি। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট পাকিস্তানপন্থী এজেন্টরা যখন বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের অধিকাংশ সদস্যকে নির্মম ভাবে হত্যা করে, তখন দেশের উন্নয়নের যাত্রা হঠাৎ করে বন্ধ হয়ে যায়। এই বিপর্যয় শুধু দেশকে শোকার্তই করেনি, বরং বঙ্গবন্ধু যে উন্নয়নের গতিপথ শুরু করেছিলেন তাতেও হস্তক্ষেপ করেছিল।

শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যার পর, বাংলাদেশের পরবর্তী দশকগুলিকে সংজ্ঞায়িত হয়েছিল স্বৈরাচারী সরকার, সামরিক উত্থান এবং রাজনৈতিক অস্থিরতার মাধ্যমে। জনগণের গণতান্ত্রিক আশার প্রতিনিধিত্বকারী আওয়ামী লীগ সুবিধাবঞ্চিত ও নিপীড়িত হয়েও সামরিক শাসনের বিরোধিতা অব্যাহত রেখেছিল। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াইয়ের এক গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দলের নেতৃত্ব গ্রহণ করেছিলেন ১৯৮১ সালে।

শেখ হাসিনার নির্দেশে আওয়ামী লীগ বেসামরিক সরকার ও গণতন্ত্রের প্রত্যাবর্তনের সমর্থনে সামরিক নিয়ন্ত্রণের বিরুদ্ধে নিরলস অভিযান চালিয়ে গেছে। বিভিন্ন সময় এই দলটি চরম নিপীড়নের শিকার হয়েছিল এবং শেখ হাসিনা নিজে অনেক হত্যার প্রচেষ্টা থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ক্ষমতায় থাকাকালীন ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা করা হয়েছিল শেখ হাসিনার জনসভায়। পরবর্তীতে বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে রাষ্ট্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সংশ্লিষ্টতা দেখতে পাওয়া গেছে সেই হামলায়। এই সমস্যাগুলির মধ্যেও আওয়ামী লীগের দৃঢ়সংকল্প ছিল অটল। ফলে, এই দলটি গণতান্ত্রিক যুদ্ধে জয়লাভ করে ক্ষমতা পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে।

১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় ফিরে আসার পর থেকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন এনেছে যা ২০০৯ সাল থেকে আরও গতিশীল হয়েছে। মূলত একদা "বাস্কেট কেস" হিসাবে পরিচিত এই দেশটি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে উন্নয়নশীল বিশ্বে সামাজিক উন্নতি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির একটি মডেল হিসাবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে।

স্বল্প আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়ে বাংলাদেশ বিস্ময়কর অর্থনৈতিক উন্নয়ন দেখিয়েছে। একটি শক্তিশালী উৎপাদন ক্ষেত্র (বিশেষ করে বস্ত্র শিল্পে), এবং উল্লেখযোগ্য অবকাঠামোগত উন্নতির জন্য বাংলাদেশ বেশ শক্তিশালী জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার অর্জন করে চলেছে। সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, স্বাস্থ্যসেবা এবং শিক্ষা ক্ষেত্রে বরাদ্ধ বৃদ্ধি করেছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচির মতো প্রকল্পগুলি প্রযুক্তিগত পরিবর্তন এবং উদ্ভাবনকে ত্বরান্বিত করেছে।

এছাড়াও, পদ্মা সেতু, মেট্রো রেল এবং বিশাল সড়ক নেটওয়ার্ক সম্পর্কিত প্রকল্পগুলি যোগাযোগকে শক্তিশালী করেছে এবং বাণিজ্য ও শিল্পের প্রসারের মাধ্যমে আঞ্চলিক ও অর্থনৈতিক সংহতকরণের প্রসারে সহায়তা করেছে। নারী অধিকারকে প্রথম অগ্রাধিকার দেওয়া, মেয়েদের শিক্ষার সম্ভাবনা নিশ্চিত করা এবং নারী কর্মসংস্থানের অংশীদারিত্বকে প্রথমে তুলে ধরার মাধ্যমে আওয়ামী লীগ লিঙ্গ সমতা নিশ্চিতে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত দুর্বলতাগুলি স্বীকার করে, সরকার এর পরিণতি হ্রাস করতে টেকসই অনুশীলন এবং অভিযোজিত নীতিগুলি ব্যবহার করেছে বিধায় জলবায়ু সহনশীলতায় বাংলাদেশ বৈশ্বিক নেতাদের মধ্যে স্থান করে নিয়েছে।

বছরের পর বছর ধরে, শেখ হাসিনা'র অভিজ্ঞ নেতৃত্ব আওয়ামী লীগ অনেক চ্যালেঞ্জ সফলভাবে অতিক্রম করতে সক্ষম হয়েছে। তাঁর দক্ষ নেতৃত্ব দলের ঐক্য জোরদার করার পাশাপাশি দেশের উন্নয়নে সহায়তা করেছে। তবে, আগামী দিনে, আওয়ামী লীগকে দুর্নীতি মোকাবিলা করতে হবে এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপটে অনিশ্চয়তা এবং ওঠানামা কমাতে স্মার্ট এবং নমনীয় নীতি গ্রহণ করতে হবে।

৭৫তম বার্ষিকী উদযাপন এবং মহান গর্ব ও ভবিষ্যতের ঐতিহ্য বিবেচনা করে আওয়ামী লীগ ইতিহাসের একটি সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে রয়েছে। স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা থেকে অর্থনৈতিক সাফল্য ও সামাজিক অগ্রগতির পথে একটি জাতিকে নেতৃত্ব দেওয়া একটি দল হিসাবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণের পাশাপাশি শেখ হাসিনা নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের জনগণের জন্য নতুন আশা ও অগ্রগতির গল্প তৈরি করে করে চলেছে।

তবে, দলের দলের সামনে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের সম্ভাবনা ও সমস্যা। বাংলাদেশের জনগণ বিশ্বাস করে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এই লক্ষ্যগুলি অর্জন করতে সক্ষম হবে। আসুন আমরা সকলে দলের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে দলের নেতৃত্ব ও সমর্থকদের অভিনন্দন জানাই। আমরা আশা করি, এই দল আগামী দিনে দেশের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করবে।

লেখক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের প্রফেসর।

এইচআর/এমএস

দলের দলের সামনে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের সম্ভাবনা ও সমস্যা। বাংলাদেশের জনগণ বিশ্বাস করে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এই লক্ষ্যগুলি অর্জন করতে সক্ষম হবে। আসুন আমরা সকলে দলের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে দলের নেতৃত্ব ও সমর্থকদের অভিনন্দন জানাই। আমরা আশা করি, এই দল আগামী দিনে দেশের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করবে।

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।