চিন্তার দৈন্যতা থেকেই বিএনপির ইভিএম বিরোধিতা

প্রকাশিত: ০৪:৪১ পিএম, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
চিন্তার দৈন্যতা থেকেই বিএনপির ইভিএম বিরোধিতা
ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রীর ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহারের প্রস্তাবের বিরোধিতাকে বিএনপির ‘জ্ঞানের দৈন্যতা’ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। শুক্রবার জাতীয় শিল্পকলা একাডেমিতে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম ওয়াজেদ মিয়ার ৭৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এ সভার আয়োজন করা হয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা এবং দৈন্যতার কারণে বিএনপি, বিএনপি নেত্রী সবসময়ই আধুনিক যে কোন পদ্ধতি নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন। এর আগে বিএনপির শাসনামলে খালেদা জিয়ার ‘সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হলে দেশের তথ্য পাচার হয়ে যাবে, দেশ নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়বে’ এমন অজ্ঞতাপ্রসূত মনোভাবের কারণে বিনামূল্যে সাবমেরিন ক্যাবলে বাংলাদেশ যুক্ত হতে পারেনি। পরবর্তীতে কয়েকশ কোটি টাকা খরচ করে দেশকে সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হতে হয়েছিল।

তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের অনেক দেশেই জাতীয় নির্বাচনে এখন ইভিএম ব্যবহার হচ্ছে। আমাদের দেশে বেশ কয়েকটি স্থানীয় নির্বাচনও ইভিএম পদ্ধতিতে সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী কেবল ইভিএম ব্যবহারের প্রস্তাবনা করেছেন মাত্র। কোন পদ্ধতিতে নির্বাচন হবে তা ঠিক করার দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের।

খালেদা জিয়াকে জেলে যেতে হলে দেশে কোন নির্বাচন হবে না বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে হাছান মাহমুদ বলেন, নির্বাচন কারো জন্য বসে থাকবে না। ২০১৪ সালেও যেমন কারো জন্য বসে ছিল না। নির্বাচনও সংবিধান অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে। বিচারাধীন মামলায় বিএনপি নেত্রী কোথায় যাবে তা কেবল আদালতেরই এখতিয়ার। মামলার রায় দেবে আদালত, সরকার নয়।  

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ অন্য গণতান্ত্রিক দেশে যেমন নির্বাচনকালীন সরকারের অধীনেই নির্বাচন হয় ঠিক তেমনি বাংলাদেশেও বর্তমান সরকারের অধীনেই নির্বাচন হবে যেখানে সরকার প্রধান থাকবেন শেখ হাসিনা।

বিশিষ্ট নাট্য ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমামের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিণ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, শিক্ষাবিদ ড. আব্দুল মান্নান, ড. ইনামুল হক, বলরাম পোদ্দার, অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

এইউএ/এএইচ/এমএস