৮ ফেব্রুয়ারি আ.লীগের কোনো কর্মসূচি নেই : ওবায়দুল কাদের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:০৯ পিএম, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য রয়েছে আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি (বৃহস্পতিবার)। দিনটিকে নিয়ে রাজনীতির মাঠ সরগরম। জনমনে উদ্বেগ আর প্রশ্ন-কী হবে সে দিন?

বিএনপি এ দিনটিকে ঘিরে বিভিন্ন প্রস্তুতির কথা জানিয়ে আসছে আগে থেকেই। অন্যদিকে ‘সহিংস’ বিএনপিকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী প্রস্তুত বলে জানাচ্ছেন সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রী। তবে দলের কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি আছে কি-না? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ওই দিন (৮ ফেব্রুয়ারি) আওয়ামী লীগের কোনো কর্মসূচি নেই।

সোমবার আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর তিনি এ কথা জানান।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘৮ ফেব্রুয়ারি আমাদের কোনো কর্মসূচি নেই। উই হ্যাভ নো প্রোগ্রাম। আমরা কোনো কর্মসূচি দেইনি। আমরা পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে বিশ্বাস করি না।’

আবদুল হামিদকে পুনরায় রাষ্ট্রপতি পদে দলের মনোনয়ন দেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘তার (আবদুল হামিদ) থেকে জনগণের কাছে সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য ব্যক্তির বিকল্প এ মুহূর্তে আমরা খুঁজে পাইনি। আমাদের অনেকেই আছেন। তবে আমাদের কাছে মনে হয়েছে উনিই জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি এবং সর্বজন শ্রদ্ধেয়। একজন মানুষ দল করেও সর্বজন শ্রদ্ধেয়।’

তিনি আরও বলেন, রাষ্ট্রপতি তো দলের রাষ্ট্রপতি নয়। তিনি হবেন দেশের রাষ্ট্রপতি। ওই ধরনের একজনকেই আমরা খুঁজে পেয়েছি। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং সর্বসম্মতভাবে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, তিনি (আবদুল হামিদ) প্রাক্তন দুইবারের স্পিকার, ৭বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য। এটাও তার ক্রেডিট, খাঁটি বাংলার বীরপুরুষ ও বিশিষ্ট মুক্তযোদ্ধা। তাকে আমরা চয়েজ করেছি। এ মুহূর্তে জনগণের যে পারসেপশন, তাদের চোখে যে ভাষা তাতে আবদুল হামিদই সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য রাষ্ট্রপতি।

দলে প্রত্যাশা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার কাছে দলের কোনো প্রত্যাশা নেই। তিনি জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করলেই আমরা খুশি।

এর আগে সিইসি কেএম নূরুল হুদার কাছে আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দেন ওবায়দুল কাদের। এ সময় জাতীয় সংসদের প্রধান হুইপ আ স ম ফিরোজ, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ, শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু, সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেমন, হুইপ শহিদুজ্জামান সরকার, হুইপ আতিকুর রহমান আতিক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর তারা সিইসির রুমে প্রায় ২০ মিনিট অবস্থান করেন। নির্বাচন কমিশন (ইসি) ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী দেশের ২১তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের জন্য ইসির কাছে আজকের (৫ ফেব্রুয়ারি) মধ্যে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে। মনোনয়নপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে ৭ ফেব্রুয়ারি। আর প্রত্যাহারের শেষ দিন ১০ ফেব্রুয়ারি।

এইচএস/আরএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :