জাফরউল্লাহ চৌধুরীর কাছে ফর্মূলা চাইলেন মওদুদ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৪৪ পিএম, ১৩ জুলাই ২০১৮

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, বর্তমান সরকারের কারণে দেশের গণতন্ত্র এখন মৃত্যুশয্যায়। এখান থেকে আমাদেরকে উদ্ধার হতে হবে। আর জাফর উল্লাহ সাহেব যেহেতু ডাক্তার, সুতরাং উনি একটি ফর্মূলা দিক, যাতে দেশে মৃত্যুশয্যায় থাকা গণতন্ত্রকে বাঁচানো যায়।

মওদুদ বলেন, একমাত্র বিকল্প হলো একটি জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে এই সরকারের পরিবর্তন। জাফর উল্লাহ চৌধুরীকে বলতে চাই আমরা যদি ব্যর্থ হই তাহলে আপনি সেই ভূমিকা পালন করবেন । কারণ দেশের মানুষ আর বসে থাকতে চায় না। এখন সময় এসেছে। আমরা যদি ঐক্যের প্রক্রিয়া সফল করতে না পারি, দেশের মানুষ খুবই হতাশ হবে। সেখানে কারো না কারো একটা ভূমিকা থাকতে হবে।’

শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক ‘প্রতিবাদী যুব সমাবেশে’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

স্বাধীনতা ফোরাম এ সমাবেশের আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ। অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বেগম সেলিমা রহমান, ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফর উল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

মওদুদ বলেন, ‘আমাদের দেশের যারা সুশীল সমাজ তাদেরকে তো খুব ভাল করে চিনি। যারা সরকারি মদদপুষ্ট তাদেরকে বুদ্ধিজীবী বলাটা বোধ হয় ঠিক হবে না, তারা দলজীবী। ভারতে যেমন শক্তিশালি বুদ্ধিজীবী মহল আছে, একটা সিভিল সোসাইটি আছে। তারা যে কোনো সরকারের, যে কোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলেন। আমাদের তেমন জাফর উল্লাহ চৌধুরী সাহেব, আসিফ নজরুল সাহেব আছেন। এছাড়া টিআইবি আছে, সিপিডি আছে, একেবারে যে নাই তা না। বর্তমানের এই সঙ্কটের সময় তাদের অবদান নিঃসন্দেহে অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে ।’

তিনি বলেন, ‘আমি অন্য কোনো বিকল্প দেখি না। ডা. জাফর উল্লাহ চৌধুরী একই কথা বলেছেন, অন্য কোনো বিকল্প নাই। কারণ ফ্যাসিবাদকে পৃথিবীর কোথাও সাধারণ নিয়মে উৎখাত করা সম্ভব হয় নাই। ফ্যাসিবাদের মূল দর্শন হলো আমিই শাসন করবো।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বর্তমান সরকার মনে করে তারাই সরকার। বাংলাদেশে আর কারো রাষ্ট্র পরিচালনার অধিকার নাই। আজ গণতন্ত্রের নাম করে, নির্বাচনের কথা বলে দেশে একটি কর্তৃত্ববাদ সৃষ্টি হয়েছে। সে নির্বাচনটা কীভাবে হয়েছে আমরা জানি।’

কেএইচ/এমএমজেড/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :