খালেদার অসুস্থতা আরও বেড়েছে : রিজভী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৪০ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। তিনি বলেন, তার (খালেদা জিয়া) সুচিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি। ব্যক্তিগত বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শ নেয়ারও কোনো সুযোগ দেয়া হচ্ছে না। না দেয়া হচ্ছে মুক্তি, না সুচিকিৎসা। আইনত জামিনযোগ্য মামলাতেও জামিন দেয়া হচ্ছে না।

মঙ্গলবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, শুধু নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্যই শেখ হাসিনা প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বিকে বাইরে থাকতে দেননি। কারণ, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রশ্নে আপোষহীন থাকতেন। তাই এখন অসুস্থতা-যন্ত্রণা ও মানসিক নির্যাতনের এক বিষাদঘন পরিবেশে থাকতে বাধ্য করা হচ্ছে। এ মুহূর্তে দেশনেত্রীকে সুচিকিৎসা এবং নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।

তিনি বলেন, ভুয়া ভোটের সরকারের অবৈধ শাসনের শুরুতেই দেশব্যাপী চরম অরাজকতা বিরাজ করছে। কোথাও যেন কোনো কিছুই নিয়ন্ত্রণে নেই। আইন-শৃঙ্খলা ভেঙ্গে পড়েছে। গুম-খুন-বিচার বহির্ভূত হত্যার সাথে সামাজিক অনাচার মহামারি আকার ধারণ করেছে।

বিএনপির এ নেতা বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দেশ থেকে সুশাসন বিতাড়িত করে রক্তঝরা শাসননীতির ওপর ভর করে এখন অন্যদের জন্য পরামর্শ কেন্দ্র খুলে বসেছেন। অন্যদের পরমার্শ দেয়া থেকে বিরত থেকে সড়কের দিকে তাকান, গণপরিবহনের দিকে তাকান।গণপরিবহনের নৈরাজ্যের দায়, সড়কে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যুর দায় আপনি এড়াতে পারবেন না।

তিনি আরও বলেন, মিডনাইট ভোটের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কয়েকদিন আগে পুলিশকে বলেছেন দ্রুত মামলার কাজ নিষ্পত্তি করতে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পেয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী আগের চেয়ে বেপরোয়া হয়ে গেছে। সারাদেশে পুলিশি নিপীড়ন আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। বিএনপির রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের পুলিশি মামলা দিয়ে হয়রানি করতে গিয়ে বিচার ব্যবস্থাকে নড়বড়ে করে ফেলা হয়েছে। এ দেশে আওয়ামী ক্ষমতাসীনরা চাইলেই মামলা দিতে পারে।

সংবাদ সম্মেলন থেকে বেগম খালেদা জিয়াসহ সুনির্দিষ্ট করে তৃতীয় দফা বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার মুক্তি দাবি করেন রিজভী।

কেএইচ/আরএস/পিআর