‘সরকারের স্বর’ কমে গেছে : ফখরুল

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০৬ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
ফাইল ছবি

দুর্নীতির অভিযোগে ক্ষমতাসীনদের গ্রেফতারের কয়েকটি ঘটনায় ‘সরকারের স্বর’ কমে গেছে মন্তব্য করে দায় নিয়ে পদত্যাগ দাবি জানিয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটি।

শনিবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে স্থায়ী কমিটির বৈঠক শেষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই মন্তব্য করেন।

ফখরুল বলেন, তাদের (সরকার) স্বরও কমে গেছে আজকাল। যেভাবে জোরগলায় কথা বলত এখন তারা নিজেরাই ধরা পড়ে গেছে। আমাদের তো অপেক্ষা করতে হয়নি। তাদের লোকই সব ধরিয়ে দিচ্ছে, ধরা পড়ছে তারা- এখন যেন স্বরটা কমে আসছে।

তিনি বলেন, একটা কথা তাদের (সরকার) বলতে চাই, গলাবাজি না করে রাষ্ট্র পরিচালনায় ব্যর্থ হচ্ছেন- এই কারণে পদত্যাগ করে দয়া করে নতুন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে, নিরপেক্ষ নির্বাচন পরিচালনা করে জনগণকে রেহাই দেন, জনগণকে স্বস্তি দেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, গোটা দেশে এখন একটাই মাত্র আলোচনা- সেটা হচ্ছে ক্যাসিনো-জুয়া। সারাদেশে বলা হচ্ছে যে, ঢাকার বাইরেও এই জুয়া চলছে। এই সরকারের আমলে এটা প্রচণ্ড রকমে বেড়ে গেছে। বেড়ে যাওয়ার প্রধান কারণটা হচ্ছে তাদের নিয়ন্ত্রণ নেই কোথাও।

ফখরুল বলেন, কয়েকদিন আগে জোটের অন্যতম শরিক রাশেদ খান মেনন বলেছেন যে, দুর্নীতি এখন প্রাতিষ্ঠানিক রূপ নিয়েছে। অর্থাৎ দুর্নীতি এখন একেবারে উপর থেকে শুরু করে নিচে পর্যন্ত ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার, ওই চকিদার পর্যন্ত দুর্নীতি হচ্ছে একেবারে ফ্রি- যা খুশি করতে পার, কেউ কিছু দেখবে না, দেখার কেউ নেই।

তিনি আরও বলেন, আমাদের তো বলার দরকার হয় না। যেখানে একটা পর্দার দাম ৩০ লাখ টাকা, একটা বালিশের দাম সাত হাজার টাকা, একটা বইয়ের দাম ৮৫ হাজার টাকা। এভাবে দেখেন গণমাধ্যমে যে তালিকা এসছে কীভাবে ভয়াবহ দুর্নীতি চলছে। মেগা প্রজক্টে দুর্নীতি পদ্মা সেতু প্রজেক্ট আট হাজার কোটি টাকার প্রজেক্ট ৩০ হাজার টাকা পার হয়ে গেছে, মেট্রোরেল, এক্সপ্রেস রেল- সবগুলো প্রজেক্টে দুর্নীতি ছাড়া আর কিছু নেই। চতুর্দিকে দেখবেন শুধু দুর্নীতি দুর্নীতি আর দুর্নীতি। এই অবস্থায় একটা রাষ্ট্র কোনো মতেই চলতে পারে না।

বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব ছাড়াও খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, আবদুল মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও নজরুল ইসলাম খান উপস্থিত ছিলেন।

কেএইচ/বিএ/জেআইএম