খালেদা জিয়া শুকিয়ে গেছেন, দাবি রিজভীর

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৫৩ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ওজন কমে যাওয়ায় বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়া শুকিয়ে গেছেন বলে দাবি করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

সোমবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

রিজভী বলেন, সম্পূর্ণ নিরপরাধ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কারাবন্দির আজ ৫৯২তম কালোদিবস। ২০ দিন পর গত শুক্রবার দেশনেত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ পেয়েছিলেন তার স্বজনরা। তাদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা এতটাই খারাপ হয়ে পড়েছে যে, তাকে এখন আর চেনা যাচ্ছে না। কারাগারে যাওয়ার আগে তিনি যেমন ছিলেন, এখন তেমন আর নেই। তার ওজন অনেক কমে যাওয়ায় শুকিয়ে গেছেন তিনি।’

রিজভী আরও বলেন, ‘অসুস্থতায় তিনি হাঁটাহাঁটি করতে পারেন না। বিছানা অথবা চেয়ারে বসে থাকতে হয়। এ কারণে ওষুধ খাওয়ার পরও তার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আসছে না। পায়ের ব্যথা কমেনি। কারাগারে গেলেন হেঁটে। অথচ এখন হাঁটতে পারছেন না। হুইলচেয়ারে করে তাকে এদিক-ওদিক নিতে হয়। তিনি উঠে দাঁড়াতে পারে না, তার সারা শরীরে ব্যথা। এমনকি হাত দিয়ে মুখে তুলে খেতেও পারে না। রাতে ঠিকভাবে ঘুমাতে পারেন না, তার দুই কাঁধ প্রায় ফ্রোজেন, হাতগুলো ফ্রোজেন হয়ে যাচ্ছে। অসুখটা এমন যেটা- ‘ইরিভারসেভেল ডিজিস’ যে ক্ষতিটা হবে তা আর কোনো চিকিৎসাতেই ফিরে আসবে না। তার অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আপনি দেশনেত্রীর ওপর অনেক অত্যাচার করেছেন এবার ক্ষান্ত দিন, মিথ্যা সাজানো প্রতিহিংসার মামলায় অনেক বেশি শাস্তি দেয়া হয়েছে। এবার দ্রুত তাকে মুক্তি দিন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চলমান অভিযানে বিস্ময় প্রকাশ করে রিজভী বলেন, লোক দেখানো এ অভিযানে মাদক ও দুর্নীতিবাজ গডফাদাররা অধরা রয়ে গেছেন।

রিজভী বলেন, সরকারি দলের অঙ্গ সংগঠনের চুনোপুঁটি নেতারা আঙ্গুল ফুলে একেকটা বটগাছ হয়ে গেছে। ক্ষমতাসীন যুবলীগের নেতারা ঢাকায় চালাচ্ছে ৬০টি ক্যাসিনো, ঢাকার বাইরেও রয়েছে আরও অসংখ্য ক্যাসিনো। যেখানে প্রতিরাতে শত শত কোটি টাকা উড়ছে জুয়ার টেবিলে। মাদকের ব্যবসা চলছে দেদারছে। এর পাশাপাশি অবৈধ নাইট ক্লাব, পানশালা, বাগানবাড়ি, এমনকি তাদের ঘরে ঘরে জুয়া ও মাদকের আসর বসছে। ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ফুটবল ক্লাবগুলো দখল করে তারা জুয়া আর ক্যাসিনো ক্লাবে পরিণত করেছে ক্ষমতাসীন রাঘববোয়াল এমপি-মন্ত্রীরা। এসব জুয়ার ক্লাব থেকে আয়ের একটা অংশ চলে যায় নানান হাত ঘুরে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-দফতর সম্পাদক মুহাম্মদ মুনির হোসেন প্রমুখ।

কেএইচ/জেএইচ/এমএস