শরিকদের তোপের মুখে গয়েশ্বর-নজরুল

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:২৮ পিএম, ১০ অক্টোবর ২০১৯

২০ দলীয় জোট নেতাদের তোপের মুখে পড়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এবং নজরুল ইসলাম খান।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জোটের বৈঠকে শরিক দলগুলোর শীর্ষ নেতাদের তোপের মুখে পড়েন বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরামের এ দুই নেতা।

জানা গেছে, আবরার হত্যার প্রতিবাদে ২০ দলীয় জোট ১৫ অক্টোবর যে কর্মসূচি ঘোষণা করেছে এ কর্মসূচির সিদ্ধান্ত বিএনপি এককভাবে নিয়েই জোটের বৈঠকে উপস্থাপন করেন। বিএনপির এই আচরণে ক্ষুব্ধ বৈঠকে উপস্থিত শরিক নেতারা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ২০ দলের সমন্বয়কারী নজরুল ইসলাম খান কর্মসূচির বিষয়টি উত্থাপন করলে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা যদি আগেই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন তাহলে বৈঠক ডাকার দরকার কি? এ সময় ফরহাদকে শরিক অন্য নেতারা সমর্থন জানান।

জোটের নিয়মিত বৈঠক বা কর্মসূচি নেই কেন? আবরার ফাহাদ হত্যার পাঁচদিন পরে কেন বৈঠক? প্রভৃতি প্রশ্নবানে বিএনপি নেতাদের জর্জরিত করেন তারা।

শরিক দলের নেতাদের ক্ষোভ প্রশমনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, দেশের যে রাজনৈতিক পরিস্থিতি তাতে আমরা দুটি জোট করেছি। দুই জোটেই আমাদের জবাবদিহিতা রয়েছে। আপনারা আমাদের সমমনা। কিন্তু আমরা আরেকটি যে জোট করেছি তাদের সঙ্গে আদর্শিক সম্পর্ক নেই। আমরা লাখ লাখ মানুষ জড়ো করে সমাবেশ করি তার ফসল তারা নেয়। বৃহত্তর ঐক্য সৃষ্টির জন্য আমরা ছাড় দিচ্ছি। আপনারাও ছাড় দেবেন। নিয়মিত জোটের কর্মসূচি রাখার কথাও বলেন তিনি।

এ ব্যাপারে ফরিদুজ্জামান ফরহাদ জাগো নিউজকে বলেন, ‘হ্যাঁ আমি বলেছি, আগে থেকেই যদি কর্মসূচির সিদ্ধান্ত তারা নিয়ে নেয় তাহলে মিটিং করার কি দরকার।’

তিনি বলেন, ‘কাউকে না কাউকে তো বলতে হবে, তাই বলেছি। ’

ন্যাপ ভাসানী চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলাম বলেন, জোটের নিয়মিত কর্মসূচি না থাকা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। এখন থেকে প্রতি মাসে একবার জোটের বৈঠক হবে।

নুর হোসেন কাশেমীর সভাপতিত্বে বৈঠকে অন্যদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ২০ দলের সমন্বয়কারী নজরুল ইসলাম খান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মুস্তাফিজুর রহমান, জাগপার খন্দকার লুৎফর রহমান, আসাদুজ্জামান আসাদ, ডেমোক্রেটিক লীগের সাইফুদ্দিন মনি, এনডিপির কারী আবু তাহের, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপের শাওন সাদেকী, মুসলিম লীগের বুলবুল, কল্যাণ পার্টির মাহামুদ হাসান, জামায়াতের কর্ম পরিষদ সদস্য আব্দুল হালিম প্রমুখ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

কেএইচ/এএইচ/পিআর