অভিযোগ উঠলে কাউন্সিলররা আগামীতে মনোনয়ন পাবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৩৭ পিএম, ১৫ অক্টোবর ২০১৯

দুর্নীতির অভিযোগ উঠলে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের আওয়ামী লীগ দলীয় কাউন্সিলররা আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাবেন না বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের আওয়ামী লীগ দলীয় অনেক কাউন্সিলরের নামে বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে কি না- জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দেখুন, এটা কেস টু কেস হবে। অপরাধ অনুযায়ী এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। একজন তো অলরেডি অ্যারেস্টেড, আরও একজনের বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ এসেছে। এগুলো যাদের বিরুদ্ধে আসবে তারা পরবর্তী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মনোনয়ন পাবেন না, এটা আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি।’

তিনি বলেন, ‘এ ধরনের অপকর্মের অভিযোগ যাদের বিরুদ্ধে আছে, তাদের মনোনয়ন দেয়া হবে না। যেখানে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া দরকার দুদককে বলা আছে। দুর্নীতি দমন কমিশন ব্যবস্থা নিতে পারে, যে কারও ব্যাপারে।’

এসব কাউন্সিলরের মাথার ওপর ছায়া হয়ে যারা ছিল, তাদের ধরা হকে কি না- এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ছায়া তো নয় ছাতা। ছাতাগুলোও খোঁজা হচ্ছে। আমি সেদিনও বলেছি, এম্পটি সেড ব্যাড ক্যাটেলের (দুষ্ট গরুর চেয়ে শূন্য গোয়াল) চেয়ে ভালো।’

‘ছাতা’দের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া কবে থেকে দৃশ্যমান হবে- জানতে চাইলে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, ‘দৃশ্যমান অলরেডি হচ্ছে। যারা অ্যারেস্ট হয়েছে তারা কি কম গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিল? বড় বড় পদে ছিল। অনেকের বিরুদ্ধে চার্জশিটও হয়েছে। জেলা পর্যায়ের নেতা গত সংসদের এমপির বিরুদ্ধেও দুদকে চার্জশিট হয়েছে। আরও কয়েকটার তদন্ত চলছে।’

দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান থেমে গেছে নাকি চলমান আছে- এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা কোনো দিনও থামবে না। যতক্ষণ না এটাকে আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারব, টার্গেট এসিভ করতে না পারব; ততক্ষণ পর্যন্ত মাদক, সন্ত্রাস, ক্যাসিনো জুয়া, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে আমাদের প্রধানমন্ত্রী যে অভিযান শুরু করেছেন তা শেষ হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘এবার কাউন্সিলকে সামনে রেখে আমাদের টার্গেট- তৃণমূল পর্যায় থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় পর্যায় পর্যন্ত বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে নতুন কমিটি করার। এখন সারাদেশেই তৃণমূলের সম্মেলন হচ্ছে। সব বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের প্রতি নির্দেশনা রয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী ইনফর্মালিও আমাদের সঙ্গে বসেছেন, পরপর দুবার বলেছেন এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। কোনো বিতর্কিত ব্যক্তি যাতে দলের নেতৃত্বে না আসতে পারে।’

আরএমএম/এমএসএইচ/এমকেএইচ