রাস্তায় নামলেই খালেদার মুক্তি নিশ্চিত : দুদু

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:১৪ পিএম, ১০ নভেম্বর ২০১৯

দলের নেতাকর্মীরা রাস্তায় নামলেই গণতন্ত্র ও বেগম খালেদা জিয়া নিশ্চিত মুক্তি পাবে বলে মনে করছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদু। 

রোববার (১০ নভেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে আব্দুস সালাম হলে জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের উদ্যোগে জাতীয় সংহতি ও বিপ্লব দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ অভিমত ব্যক্ত করেন। 

আমরা যারা রাজনীতি করি তাদের ব্যর্থতা আছে উল্লেখ করে দুদু বলেন, ‘আন্দোলন কিন্তু জাহাঙ্গীরনগরে হচ্ছে, কোটা আন্দোলন হয়েছে, ছাত্র সংগঠন ও বিভিন্ন সংগঠন আন্দোলন করছে। আমরা যে করছি না, তা নয়। জনগণ রাস্তায় নামছে না এটাও নয়, জনগণ রাস্তায় আছে, কিন্তু আমরা রাস্তায় যেতে পারছি না। জনগণের সঙ্গে সঙ্গ দিতে পারছি না। আমরা রাস্তায় নামলে আমি নিশ্চিত গণতন্ত্র ও বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পাবে।’

বিএনপির এই  নেতা বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনতে হবে। গণতন্ত্রের জন্য মর্যাদার জন্য এ দেশের স্বাধীনতার জন্য মুক্তিযুদ্ধের জন্য। এ দেশের গণতন্ত্র আন্দোলন তার জন্যই হয়েছে। গণতন্ত্র মুক্তি পেয়েছিল তার জন্যই।

তিনি সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ঐক্যবদ্ধ ছাড়া অন্য কোনো পথ নেই। ঐক্যবদ্ধ হলেই আমরা সফল হতে পারব।

তিনি বলেন, ‘৭ নভেম্বর কেন এসেছে? অনেকেই বলে ৭ নভেম্বর সৈনিক হত্যা দিবস। আসলে ৭ নভেম্বর সৈনিক হত্যা বন্ধ হয়, যা ৩ নভেম্বর শুরু হয়েছিল। ৩ নভেম্বর সৈনিক হত্যা শুরু করেছিল, ৭ নভেম্বর বিপ্লবের মাধ্যমে তা শেষ হয়। এই প্রেক্ষাপট কারা রচনা করেছিল? গণতন্ত্র যারা হরণ করেছে তারা। স্বাধীনতা যারা কেড়ে নিয়েছে তারা। সেই কারণেই ৭ নভেম্বর। ৭ নভেম্বর না আসলে গণতন্ত্র  আসতো না। আজকে যারা ক্ষমতায় আছে তারা থাকত না। জাসদ থাকতো না। আজকের যিনি প্রধানমন্ত্রী তিনি একটি দল থেকে প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। ৭ নভেম্বর না আসলে তিনি একটি দল থেকে প্রধানমন্ত্রী হতে পারতেন না। একজনই হতেন তিনি হতেন বাকশালের প্রধান।

শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে এবং জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এসকে সাদীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, শিশুবিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য তকদির হোসেন মোহাম্মাদ জসিম, নাজিম উদ্দিন মাস্টার, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য জিয়াউল হায়দার পলাশ, মাইনুল ইসলাম, অধ্যাপক সেলিম হোসেন, লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, কৃষিবিদ মেহেদি হাসান পলাশ, খলিলুর রহমান ইব্রাহিম, এম জাহাঙ্গীর আলম, আব্দুর রাজি প্রমুখ বক্তব্য দেন।

কেএইচ/জেডএ/এমকেএইচ