টিউলিপ রূপা রুশনারা আফসানাকে আ.লীগের অভিনন্দন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৫৬ পিএম, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত চার বাঙালি নারী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক টানা তৃতীয়বার এবং রূপা হক, রুশনারা আলী পুনরায় ও আফসানা বেগম প্রথমবারের মতো বিজয়ী হওয়ায় তাদেরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের পক্ষে বিজয়ীদের প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত চার বাঙালি নারী বিজয়ী হওয়ায় বিশ্বসভায় বাঙালি জাতির ভাবমূর্তি ও মর্যাদা আরও সমুজ্জ্বল হয়েছে। তাদের এই জয়যাত্রা বাঙালি জাতির গৌরব ও মর্যাদাকে অনন্য উচ্চতায় অধিষ্ঠিত করেছে। এ বিজয় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বসবাসরত বাঙালিদের মধ্যে এক নবতর জাগরণের সৃষ্টি করেছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির বিশ্বজয়ের যে অভিযাত্রা শুরু হয়েছিল, বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তা কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে। বাঙালির বিশ্বজয়ের স্বপ্ন-সারথি দেশরত্ন শেখ হাসিনার অব্যাহত সাফল্যের ধারাবাহিকতা এবং যুক্তরাজ্যের গণতন্ত্রে চার বাঙালি কন্যার ঐতিহাসিক বিজয় বাঙালির বিশ্বজয়ের অগ্রযাত্রায় অনন্য মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হবে।

যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে চার বাঙালি নারীর ঐতিহাসিক এ বিজয় বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক কার্যক্রমে নারীর অংশগ্রহণকে আরও ত্বরান্বিত এবং শান্তি, গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও প্রগতি প্রতিষ্ঠায় নারীর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণকে সুনিশ্চিত করবে বলছে আওয়ামী লীগ।

যুক্তরাজ্যের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন, ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন, বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো ও পূর্ব লন্ডনের পপলার অ্যান্ড লাইমহাউজ আসনে চার বাঙালি কন্যাকে নির্বাচিত করায় এসব আসনের সকল ভোটার এবং যুক্তরাজ্যে বসবাসরত সকল বাঙালির প্রতি অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। একই সঙ্গে, একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে টানা চতুর্থবারের মতো বিজয়ী হওয়ায় কনজারভেটিভ পার্টিকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান তিনি।

হ্যাম্পস্টেড এন্ড কিলবার্ন এলাকা থেকে জয় পেয়েছেন টিউলিপ সিদ্দিক। তিনি ২৮ হাজার ৮০টি ভোট পেয়েছেন। অপরদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী কনসারভেটিভ পার্টির জনি লাক পেয়েছেন ১৩ হাজার ৮৯২টি ভোট।

এর আগে ২০১৭ সালের নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো এমপি হিসেবে নির্বাচিত হন টিউলিপ। সে সময় তিনি মোট ৩৪ হাজার ৪৬৪টি ভোট পেয়েছিলেন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রুশনারা আলী বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো থেকে জয়ী হয়েছেন। তিনি ৪৪ হাজার ৫২টি ভোট পেয়েছেন। এর আগে ২০১৭ সালে পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসন থেকে তিনি ৪২ হাজার ৯৬৯ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত অপর ব্রিটিশ এমটি রূপা হক। তিনি লন্ডনের ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন আসনে তৃতীয়বারের মতো এমপি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। রূপা হক নির্বাচনে ২৮ হাজার ১৩২ ভোট পেয়েছেন। অপরদিকে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ প্রার্থী জুলিয়ান গেল্যান্ট পেয়েছেন ১৪ হাজার ৮৩২ ভোট। ২০১৫ সালে প্রথমবারের মতো এমপি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন রূপা।

এছাড়া আফসানা বেগম প্রথমবারের মতো যুক্তরাজ্যের নির্বাচনে এমপি হিসেবে জয়ী হলেন। তিনি ৩৮ হাজার ৬৬০টি ভোট পেয়েছেন। পূর্ব লন্ডনের পপলার অ্যান্ড লাইম হাউস আসনে আফসানার বিজয় অনেকটা সুনিশ্চিত বলে আগেই ধারণা করা হচ্ছিল। তার প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ দলের প্রার্থী পেয়েছেন ৯ হাজার ৭৫৬টি ভোট।

দেশটিতে আগের যেকোনো সংসদ নির্বাচনের তুলনায় এবার সবচেয়ে বেশি সংখ্যক নারী প্রার্থী জয় লাভ করেছেন। এর মধ্যে দিয়ে হাউজ অব কমেন্সে রেকর্ড সংখ্যক নারীদের প্রবেশ ঘটবে। এর আগে যুক্তরাজ্যের সংসদ নির্বাচনে ৬৫০ আসনের সর্বোচ্চ ২০৮ আসনে জয় পেয়েছিলেন নারীরা।

চলতি বছরের নির্বাচনে লেবার পার্টির ভরাডুবি হলেও এই চার নারী প্রার্থী বড় জয় পেয়েছেন। ইতোমধ্যেই ৬৫০টি আসনের মধ্যে ৬০০ আসনের ফলাফল হাতে এসেছে। এর মধ্যে কনজারভেটিভ দল পেয়েছে ৩৩০টি আসন এবং লেবার পার্টি পেয়েছে ১৯৬ আসন।

এফএইচএস/এসআর/পিআর