আওয়ামী লীগের অবস্থা চায়ের দোকানের মতো : আলাল

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৩৯ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০
ফাইল ছবি

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অবস্থা চায়ের দোকানের মতো বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ স্বাধীনতার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছিল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ভোটের অধিকার থেকে বঞ্চিত করার কারণে। কাজেই যারা অবৈধভাবে দেশ চালাচ্ছেন তাদের অবস্থা চায়ের দোকানের মতো। অনেক রেস্টুরেন্টে লেখা দেখবেন এখানে রাজনৈতিক আলাপ নিষেধ কিন্তু মালিক যখন আসেন তখন তিনি নিজেই রাজনৈতিক আলাপ শুরু করে দেন। আওয়ামী লীগের সেই অবস্থা তারা নিজে করবে কিন্তু অন্যকে করতে দেবে না।

শুক্রবার রাজধানীর শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে বাংলাদেশ নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের উদ্যোগে ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠায় জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজনীয়তা শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

আলাল বলেন, গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার পারস্পারিক সম্পর্ক যুক্ত শব্দ। এই অধিকারগুলোর জন্য কিছু পৃষ্ঠপোষক থাকে, কিছু প্রতিষ্ঠান থাকে রাষ্ট্রে। একে একে সেই প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভেঙে দেয়া হয়েছে। মানুষের মেরুদণ্ডগুলোকে মাখনের মেরুদণ্ডে পরিণত করা হয়েছে। অবৈধ টাকা পয়সার সুযোগ-সুবিধা দিয়ে যা দুর্নীতি করা যায় তা করে নিচ্ছে। তার প্রমাণ হলো প্রধান নির্বাচন কমিশন, বিচার বিভাগ,এবং রাষ্ট্রের অন্যতম প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠানগুলো। এসবের বিরুদ্ধে সবচেয়ে প্রতিবাদী কণ্ঠটিকে দুই বছর ধরে কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন যিনি তার উত্তরসূরিকে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। এর কারণ- তিনি ভোটাধিকারের কথা বলেন, গণতন্ত্রের কথা বলেন। অথচ দেশের মানুষ স্বাধীনতার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছিল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ভোটের অধিকার থেকে বঞ্চিত করার কারণে। কাজেই যারা অবৈধভাবে দেশ চালাচ্ছেন তাদের অবস্থা চায়ের দোকানের মতো। অনেক রেস্টুরেন্টে লেখা দেখবেন এখানে রাজনৈতিক আলাপ নিষেধ কিন্তু মালিক যখন আসেন তখন তিনি নিজেই রাজনৈতিক আলাপ শুরু করে দেন। আওয়ামী লীগের সেই অবস্থা তারা নিজে করবে কিন্তু অন্যকে করতে দেবে না।

তিনি আরও বলেন, ২০১৮ সালে ভোট ডাকাতির নির্বাচনে নির্বাচিত একজন এমপি বাবলু তার নাম। কুয়েতের সিআইডি পুলিশ হয় তাকে বন্দি করেছে। অথবা কোথাও তিনি আশ্রয় নিয়েছেন বা পালিয়ে গেছেন। দুর্নীতির বিশাল অপরাধে ও মানবপাচারের অপরাধে পুলিশ তাকে খুঁজছে। ধর্ষণ আজ মহামারি আকার ধারণ করেছে। প্রতিদিন পত্রিকায় যেভাবে ধর্ষণ খুনের সংবাদ আসছে তাতে মা-বোনেরা শিউরে ওঠে অথচ প্রতিরোধ ব্যবস্থা কমে যাচ্ছে। এভাবে দেশ চলতে পারে না।

আয়োজক সংগঠনের সহ-সভাপতি কৃষিবিদ মেহেদী হাসান পলাশের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, বিলকিস ইসলাম প্রমুখ।

কেএইচ/জেএইচ/পিআর