পাটকল বন্ধ নয়, দুর্নীতি ও অনিয়ম দূর করতে হবে : ন্যাপ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:২০ পিএম, ৩০ জুন ২০২০

সরকার কর্তৃক রাষ্ট্রায়ত্ত্ব পাটকল বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্তে বিস্ময়, উদ্বেগ, উৎকন্ঠা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি- বাংলাদেশ ন্যাপ নেতৃবৃন্দ বলেছেন, পাটকল বন্ধ করে কিংবা পিপিপি ভিত্তিতে পুনরায় চালু করে সমস্যার সমাধান হবে না। বরং পাটকলগুলোকে লাভবান করতে পাটকল পরিচালনা কেন্দ্র বিজেএমসির মাথাভারী প্রশাসন, দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের ছাঁটাই, পাটক্রয়ে দুর্নীতি ও অনিয়ম দূর করতে হবে।

মঙ্গলবার (৩০ জুন) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এসব কথা বলেন।

তারা বলেন, পাটকল বন্ধ করা বিগত সরকার তথা ৪ দলীয় জোট সরকারের নীতিমালারই অনুকরণ মাত্র। পাটকল পরিচালনা কেন্দ্র বিজেএমসির মাথাভারী প্রশাসন, দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা যারা পাটক্রয়ে দুর্নীতি, অনিয়ম করেছেন, যারা মৌসুমে পাট সরবরাহ করেননি, যারা উৎপাদিত পাটপণ্য বিপণনে কোনো ভূমিকা রাখেননি, যাদের কারণে ঐতিহ্যবাহী পাটশিল্প লোকসানি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হলো তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে পাটকল বন্ধ করে কথিত গোল্ডেন হ্যান্ডশেক দ্বারা শ্রমিকদের বিদায় করা অমূলক।

নেতৃদ্বয় বলেন, বাংলাদেশের অভ্যুদয়, সংগ্রামের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঙ্গে পাট চাষ, পাটশিল্প এবং পাটজাত দ্রব্য ওতপ্রোতভাবে যুক্ত। ৫০ লাখ পাট চাষি, পাট শ্রমিক, পাট ব্যবসায়ীসহ প্রায় ৩ কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পাটশিল্পের সঙ্গে যুক্ত। এ অবস্থায় পাটকল বন্ধ করার আজগুবি সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে পাটকলের পুরোনো যন্ত্রাংশ বাতিল করে উন্নত প্রযুক্তির আধুনিক যন্ত্রাংশ সংযোজন করে পাটকলগুলোকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর ও চালু রাখা প্রয়োজন।

শাসকশ্রেণী মাথাব্যথ্যার জন্য মাথা কেটে ফেলার পদ্ধতি অনুসরণ করছে বলে মন্তব্য করে তারা বলেন, যখন বিশ্বব্যাপী পলিথিনের বিকল্প বিবেচনায় পরিবেশবান্ধব পণ্য হিসেবে পাটের কদর বাড়ছে, এই শিল্পের বাজার তৈরি সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে, তখন সরকার পাট সেক্টরে বিদ্যমান সমস্যা দূর না করে পাটকলগুলো বন্ধ করে দেয়ার গণবিরোধী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সরকারের ভ্রান্তনীতি ও অব্যবস্থাপনায় দেশের ঐতিহ্যবাহী পাটশিল্প আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। এর আগে বিএনপি সরকারের সময় দেশের সর্ববৃহৎ পাটকল আদমজী বন্ধ করে দেয়া হয়।

কেএইচ/এনএফ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]