‘গণবিরোধী আমলাতান্ত্রিক বাজেট’ না মানার ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:২২ পিএম, ৩০ জুন ২০২০

জাতীয় সংসদে পাসকৃত বাজেটকে গরিব মারার বাজেট-গণবিরোধী-শ্রমজীবী খেটে খাওয়া মানুষের স্বার্থবিরোধী ও ধনীক শ্রেণির স্বার্থে গতানুগতিক আমলাতান্ত্রিক বাজেট আখ্যায়িত করে এ বাজেট না মানার ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)।

মঙ্গলবার (৩০ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (মার্কসবাদী) সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডা. এম এ সামাদের সভাপতিত্বে আয়োজিত প্রতিবাদ সভা থেকে এ গণবিরোধী বাজেট মেনে না নিয়ে তা প্রত্যাহারের দাবি জানায় দলটি।

সভায় বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)-সিপিবির (এম) সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডা. এম এ সামাদ বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম মধ্যবিত্ত মেহনতি গরিব মানুষকে বাঁচানোর বাজেট, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষি ও কর্মসংস্থানকে প্রাধান্য দিয়ে সরকার বাজেট প্রণয়ন করবেন কিন্তু সরকার করেছেন তার বিপরীতটা। খেলাপি ঋণ আদায়, অপ্রদর্শিত কালো টাকা আদায়, বিদেশে পাচারকৃত টাকা ফেরত আনা ও বাজেটের অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রে বিলাসিতা প্রত্যাহার, সকল প্রকার দুর্নীতি কঠোর হস্তে দমন, করোনা বিপর্যয়কালে মেগা প্রজেক্ট পরিহার, সরকারি ক্রয়-হ্রাস ও দুর্নীতি বন্ধের আশা করেছিল। কিন্তু জনগণের কাঙ্ক্ষিত আশার প্রতিফলন এ বাজেটে হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘করোনাকালে রাজস্ব ব্যয় কমিয়ে স্বাস্থ্যখাতে এক তৃতীয়াংশ খরচ করতে হবে। আমরা চেয়েছিলাম স্বাস্থ্যখাতে বাজেটের ১৫ শতাংশ বরাদ্দ ও স্থায়ীভাবে শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের জন্য স্থায়ী রেশনিং ব্যবস্থা। সরকার জনগণের আকাঙ্ক্ষাকে পদদলিত করে ধনীক ও লুটেরা শ্রেণির স্বার্থে গতানুগতিক আমলা নির্ভর বাজেট দিয়েছেন। এবারের বাজেটে ঘাটতির পরিমাণ এক লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকা যা জিডিপির ৬ শতাংশ।

তিনি আরও বলেন, এই বিপুল পরিমাণ বাজেট ঘাটতি মেটাতে জনগণের উপর ঋণের বোঝা চাপিয়ে দিয়ে বাজেটের পরিমাণকে পাঁচ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকায় বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ অর্থ ব্যয় হবে আমলা প্রশাসনের বিলাসিতা আর দুর্নীতিতে। কর রেয়াতের নামে ধনীক শ্রেণিকে বিশাল ভর্তুকি প্রদান, ঢালাওভাবে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ লুটেরাদের আরও উৎসাহিত করবে। এই বাজেটে ধনীকে আরও ধনী এবং গরিবকে শোষণ করা হবে।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বিজ্ঞানী কমরেড সামছুল হক সরকার, দফতর সম্পাদক কমরেড বিধান দাশ, কমরেড তোবারক আলী, সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও গণতান্ত্রিক বাম ঐক্যের সমন্বয়কারী ডা. সামছুল আলম প্রমুখ।

এএস/এএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]