সালথা যেতে মাঝপথ থেকে ফিরলেন বিএনপির আইনজীবীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৩৮ পিএম, ১৩ এপ্রিল ২০২১

ফরিদপুরের সালথায় যাওয়ার সময় মাঝপথ থেকে ফিরে এসেছে বিএনপির আইনজীবী প্রতিনিধি দল। সেখানে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১৪৪ ধারা জারি থাকায় তারা ফিরে আসে।

সালথা উপজেলা সোনাপুর ইউনিয়নের ফুকরা বাজারে স্থানীয়দের সংঘর্ষ ও ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাচ্ছিলেন তারা।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট ইউনিটের পক্ষ থেকে সংগঠনের গণমাধ্যম বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার একেএম এহসানুর রহমান এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই তথ্য জানান।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, 'সরকার ঘোষিত লকডাউনের ১ম দিনে গত ৫ এপ্রিল ফরিদপুরের সালথা উপজেলা সোনাপুর ইউনিয়নের ফুকরা বাজারে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে খারাপ আচরণের জের ধরে স্থানীয়দের সঙ্গে প্রশাসনের সংঘর্ষ হয়।'

'ওই সংঘর্ষের জের ধরে পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী চারজন নিহত ও শতাধিক আহতের ঘটনা ঘটে। কিন্তু বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত নিহত ও আহতের সংখ্যার ভিন্নতা রয়েছে। এই সংঘর্ষের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৬১ জনের নাম উল্লেখ করে এবং ১৬৮০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে ৫টি মামলা দায়ের করা হয়। ইতোমধ্যে ৭০- ৭২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং পর্যায়ক্রমে রিমান্ডে নেয়া হচ্ছে।'

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, 'এই সংঘর্ষের ঘটনার প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানের উদ্দেশে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সমন্বয়ে ১৪ জন আইনজীবীর প্রতিনিধি দল ফরিদপুরের সালথা উপজেলার উদ্দেশ্যে রওনা দেন।

'পদ্মা নদী পারাপারের উদ্দেশে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া ঘাটে অপেক্ষারত অবস্থায় আইনজীবীদের এই প্রতিনিধি দল জানতে পারেন যে, ফরিদপুরের সালথা উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের তিনটি গ্রাম যথাক্রমে ফুকরা, নটখোলা ও চানপুর এবং রামকান্তপুর ইউনিয়নের তিনটি গ্রাম যথাক্রমে মদনদিয়া, শোলডুবি ও খালসাডুবি সর্বমোট ৬টি গ্রামে স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করেছে।'

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, 'গত ৮ এপ্রিল আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দল স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় সালথা উপজেলার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। কিন্তু বিএনপিপন্থী ১৪ জন আইনজীবীদের প্রতিনিধি দলকে ফরিদপুরের সালথা উপজেলা সংঘর্ষস্থল পরিদর্শনে বাধা এবং প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির উদ্দেশে স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে।'

বিএনপির আইনজীবী প্রতিনিধি দলে ছিলেন- সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, সমিতির সাবেক সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সুপ্রিম কোর্ট ইউনিটের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল জব্বার ভূঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম সজল, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী, অ্যাডভোকেট গাজী তৌহিদুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আল মাহবুব, অ্যাডভোকেট মাহমুদ হাসান, অ্যাডভোকেট মো. আবুল খায়ের খান, ব্যারিস্টার একেএম এহসানুর রহমান, অ্যাডভোকেট কাজী মোস্তাফিজুর রহমান আহাদ, অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান রায়হান, অ্যাডভোকেট মো. মহসিন কবির, অ্যাডভোকেট শেখ জুলফিকার আলম ও অ্যাডভোকেট নুরে আলম সিদ্দিকী।

এফএইচ/জেডএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]