ডিএনএ টেস্ট করে প্রমাণ করুন জিয়ার লাশ চন্দ্রিমা উদ্যানে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৩০ পিএম, ৩০ আগস্ট ২০২১
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক

চন্দ্রিমা উদ্যানে জিয়াউর রহমানের লাশ কবর দেওয়া হয়েছে প্রমাণ করতে বিএনপির কাছে লাশের ছবি, না হলে কবরের দেহাবশেষের ডিএনএ পরীক্ষা (টেস্ট) করার দাবি জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

সোমবার (৩০ আগস্ট) জাতীয় প্রেস ক্লাবে বঙ্গবন্ধু প্রজন্ম কেন্দ্রীয় সংসদ আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী বলেন, পরশু বিএনপি মহাসচিব চ্যালেঞ্জ করে বলেছেন, জিয়াউর রহমানের লাশ মানুষ দেখিয়ে দিয়েছে এবং তারা খুঁজে পেয়েছেন। আমি তাকে অভিনন্দন জানাই, জাতির কাছে এ বিষয়ে কথা বলেছেন। এখন তাকে জবাব দিতে হবে, সেই লাশের ছবি কোথায়, সাধারণ একটা মানুষেরও তো ছবি থাকে। তিনি তো রাষ্ট্রপতি, রাষ্ট্রীয় শিষ্টাচার অনুযায়ী তাদের সবকিছুর ছবি ধারণ করা থাকে। জিয়াউর রহমানে লাশ পেলেন, ছবিটা দয়া করে দেখান।

তিনি বলেন, এই (চন্দ্রিমা উদ্যানে) কবর কার, আমার মতে এটা কোনো মতেই জিয়াউর রহমানের নয়। যদি হয় তবে প্রমাণ করুন।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, তা (লাশের ছবি) যদি নাও থাকে বিজ্ঞানকে আমরা কেউ অস্বীকার করতে পারি না। ডিএনএ টেস্ট করলে পাওয়া যাবে যদি ওখানে (কবরে) কিছু থেকে থাকে। ডিএনএ টেস্ট করে প্রমাণ করুন। যদি প্রমাণ হয়, জাতির কাছে নাকে খত দিয়ে ক্ষমা চাইব। যদি মিথ্যা কথা বলে থাকি, অন্য কোনো দণ্ড দিলে সেটাও মাথা পেতে মেনে নেবো। আমি চ্যালেঞ্জ করছি, সেখানে তার (জিয়াউর রহমান) মরদেহ নেই।

মন্ত্রী বলেন, আমাকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছে- জিয়াউর রহমান মারা গেছেন, তাকে নিয়ে আপনারা কেন টানা-হেঁচড়া করছেন? ব্যক্তি জিয়ার সঙ্গে আমরা কোনো বিরোধ নেই। যেটা সত্য সেটাতে থাকতে হচ্ছে। ইতিহাসের প্রয়োজনে সত্যটা উদঘাটিত হওয়া উচিত।

মোজাম্মেল হক বলেন, অনেকে দাবি করেছেন, জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিল করার। আমি বলেছি, প্রমাণ দেন যে জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনি। হ্যাঁ, আমরা বুঝি, জানি। কিন্তু মুখে বললে তো হবে না। দালিলিক প্রমাণ দেন, বাতিল করব। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীর কোনো খেতাব থাকতে পারে না। যাদের প্রমাণ আমাদের কাছে ছিল (খেতাব) বাতিল করেছি।

তিনি আরও বলেন, অপেক্ষায় আছি, প্রমাণ সাপেক্ষে বলেছি। আমরা কমিটি করে দিয়েছি। তার (বঙ্গবন্ধু হত্যার সঙ্গে জিয়াউর রহমানের সম্পৃক্ততা) সম্পৃক্ততার কী কী আছে।

আরএমএম/এমআরআর/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]