জনভোগান্তি কমাতে সড়ক খনন নীতিমালা মানার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪৭ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০২১

 

উন্নয়ন প্রকল্পের নামে কিছুদিন পরপর রাজধানীতে খোঁড়াখুঁড়ি করায় জনভোগান্তি চরম রূপ ধারণ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি অধ্যক্ষ শেখ ফজলে বারী মাসউদ।

তিনি বলেছেন, ‘জনভোগান্তি লাঘবে সড়ক খনন নীতিমালা ও সেবা সংস্থাগুলোর সমন্বয় জরুরি।’

মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের কার্যালয়ে আয়োজিত মহানগর কমিটির দায়িত্বশীলদের মাসিক এক বৈঠকে সভাপতির বক্তব্যে শেখ ফজলে বারী মাসউদ এসব কথা বলেন।

শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, ‘সড়ক খনন নীতিমালায় বর্ষা মৌসুমে খননকাজ পরিহার করার কথা উল্লেখ থাকলেও এর তোয়াক্কা করছে না ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। পুরো মৌসুমজুড়েই চলেছে সড়ক খননের কাজ। এখনো রাজধানীর যেদিকেই যায়, সেদিকেই চোখে পড়ে খনাখন্দ। একটু বৃষ্টি হলেই সড়কে জমছে পানি, ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে মানুষকে। প্রায় সব এলাকাতেই সড়কে নেমে নাজেহাল হচ্ছে রাজধানীবাসী। ঢাকার শহর যেন মৃত্যুকূপে পরিণত হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘সেবা সংস্থাগুলো বিভিন্ন সময় সড়কের নিচে পানি, পয়ঃপ্রণালী, ড্রেনেজ, গ্যাস, বিদ্যুৎ, টেলিকমিউনিকেশনসহ জরুরি প্রয়োজনে নগরীর বিভিন্ন সড়ক খনন করে। কিন্তু খনন এবং তৎপরবর্তী মেরামতে সমন্বয় ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার অভাবে প্রায়ই জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয়। নাগরিক সমাজের পাহাড়সম অভিযোগ এবং প্রচারমাধ্যমে বহুবার বিষয়টি উঠে আসার পরও এ ব্যাপারে বিশেষ অগ্রগতি নেই।’

masud

তিনি আরও বলেন, ‘এক সংস্থার খোঁড়াখুঁড়ির পর পুনরায় নির্মাণে দীর্ঘ সময় লাগে। কিছুদিনের মধ্যে আবার অন্য সংস্থার খোঁড়াখুঁড়ি শুরু হয়। ফলে সড়কের যে অংশ কাটা হয়েছে, সে অংশ দিয়ে স্বাভাবিকভাবে হাঁটাচলা বা যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। এতে করে আশপাশের সড়কে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।’

শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, ‘জনভোগান্তি কমাতে এলাকাভিত্তিক কমিউনিটি গ্রুপের সঙ্গে সেবা সংস্থার আলোচনা ও করণীয় নির্ধারণ, সড়ক খনন নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণ, নীতিমালা অনুযায়ী ওয়ান স্টপ সমন্বয় সেল এবং সিটি করপোরেশনের অঞ্চলভিত্তিক কয়েকটি মনিটরিং সেল কার্যকর করা প্রয়োজন। পাশাপাশি নির্মাণ অব্যবস্থাপনায় দায়ীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা, অযোগ্য ঠিকাদারদের কালো তালিকাভুক্ত করতে হবে।’

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তরের সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আরিফুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মাদ মুরাদ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক মুফতি ফরিদুল ইসলাম, প্রচার ও দাওয়াহবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার গিয়াস উদ্দিন (পরশ) প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমএমএ/এএএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]