তেল গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি বিএনপির

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৩৪ পিএম, ০৫ নভেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

তেল গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির সরকারি সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছে বিএনপি। দলটির পক্ষ থেকে অনতিবিলম্বে এই মূল্য বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়েছে।

শুক্রবার (৫ নভেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ দাবি করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, কেরোসিন, ডিজেল ও এলপি গ্যাসের দাম অস্বাভাবিক হারে বাড়ানো হয়েছে। এ মূল্য বৃদ্ধির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের জোর দাবি জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে জনস্বার্থকে তাচ্ছিল্য করে অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধিসহ দফায় দফায় বিদ্যুৎ, গ্যাস ও জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে। গত পরশুদিন রাতে দেশে কেরোসিন ও ডিজেলের দাম শতকরা ২৩ ভাগ বৃদ্ধি করে ৬৫ টাকা থেকে ৮০ টাকা পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে। এর একদিন যেতে না যেতেই গতকাল বৃহস্পতিবার এলপি গ্যাসের দাম ৪.২৯ শতাংশ বৃদ্ধি করে ১২ কেজির মূল এক হাজার ২৫৯ টাকা থেকে এক হাজার ৩১৩ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এলপি গ্যাসের মূল্য গত চার মাসে ৪৭.৩৬ শতাংশ বাড়ানো হলো। গত জুলাই মাসে এর মূল্য ছিল ৮৯১ টাকা।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই মূল্য বৃদ্ধি দেশের অর্থনীতিতে ‘চেইন রিঅ্যাকশন’ সৃষ্টি করবে। ডিজেল, কেরোসিন ও এলপি গ্যাসের মূল্য বাড়ায় জনজীবনে মূল্যস্ফীতির চাপ বৃদ্ধির পাশাপশি সেচ, পরিবহনসহ সামগ্রিক ব্যয় অসহনীয়ভাবে বেড়ে যাবে। জনজীবনে দুর্গতির শেষ থাকবে না। জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধির পাশাপাশি অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এবং মধ্যম ও নিম্ন আয়ের মানুষ ভয়ানক দুর্ভোগের মধ্যে পড়বে।

তিনি বলেন, আসলে গণবিরোধী আওয়ামী সরকার জনগণকেই শক্রপক্ষ বলে মনে করে। এই কারণে জনগণের বিরুদ্ধে তাদের প্রতিহিংসা হিংস্র রূপ ধারণ করে। যেখানে ভারতে জ্বালানি তেলের দাম কমানো হয়েছে, অথচ বাংলাদেশে এর দাম বাড়ানো হয়েছে! যাতে ক্ষমতাসীনরা জনগণের টাকা লুটপাট করে আগের মতই বিদেশে পাচার করতে পারে। এখন ভর্তুকি কমাতে জ্বালানির দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে, এতে জনগণের পকেট কাটা থামবে না বরং আরও বৃদ্ধি পাবে। এই দাম বৃদ্ধির দুর্বিষহ প্রভাব অর্থনীতির সব খাতে পড়বে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ভোটারবিহীন সরকারের জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে হয় না বলেই জনমতকে উপেক্ষা করে ডিজেল, কেরোসিন ও এলপি গ্যাসের মূল্য অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি করা হয়েছে। এমনিতেই বর্তমানে চাল, ডাল, আটা, চিনি, ভোজ্য তেল ও রান্নার গ্যাসের দাম দ্বিগুণ বৃদ্ধিতে স্বল্প আয়ের মানুষের জীবন এখন ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে সাধারণ মানুষ। জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি কৃষি ও শিল্পে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম লাগামহীনভাবে বাড়বে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আওয়ামী সরকার ঐতিহ্যগতভাবে হিংসা ও কলহ চর্চা করে। এরা আইনের শাসনকে হত্যা করেছে। মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে এরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের গ্যারান্টি তথা নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা বাতিল করেছে। সেই কারণেই গণবিরোধী সিদ্ধান্ত নিতে তারা দ্বিধা করে না। এর ফলশ্রুতিতে তারা বেপরোয়াভাবে কেরোসিন, ডিজেল ও জ্বালানি তেলসহ এলপি গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করে নিম্ন আয়ের মানুষকে পিষ্ট করছে।

কেএইচ/কেএসআর/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]